Home / খেলা / অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দল শ্রীলঙ্কায় গেল

অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দল শ্রীলঙ্কায় গেল

গতকাল শ্রীলঙ্কায় গেছে আকবর আলীর নেতৃত্বধীন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দল ইংল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের সাফল্যকে সঙ্গী করে ভাল করার লক্ষ্য নিয়ে এশিয়া কাপে অংশ নিতে ।

ফাইনালে ভারতের কাছে পরাজিত হওয়ায় স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে নিয়ে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজে রানার্স আপ হয় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দল।

তবে গ্রুপ পর্বে চার ম্যাচের দুটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হওয়ার আগে বাংলাদেশ-ভারত ১-১ সমতা ছিল। গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশ তিন ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে পরাজিত করে। বাকি একটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়।

আগামী ৫-১৪ সেপ্টেম্বর শ্রীলংকায় অনুষ্ঠেয় এশিয়া কাপে অংশ নিতে দেশ ছাড়ার আগে অধিনায়ক আকবর আলী বলেন, সদ্য সমাপ্ত ইংল্যান্ড সফর থেকে অনুপ্রেরণা নিতে চায় দল।

আকবর বলেন, ‘ইংল্যান্ডের মাটিতে ভারত ও ইংল্যান্ডকে পরাজিত করা ছিল বিশেষ অর্জন। এশিয়া কাপ, পরবর্তী সিরিজ এবং এমনকি আগামী বিশ্বকাপেও আমরা এ অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে পারি।’

‘ইংল্যান্ড সিরিজে আমরা কেবলমাত্র ফাইনালে হেরেছি। এছাড়া পুরো টুর্নামেন্টে আমরা ভাল খেলেছি। পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থেকেই আমরা ফাইনালে উঠেছি। তবে ফাইনালে জিততে পারিনি। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং তিন বিভাগেই এ সফরে আমরা ভাল করেছি।’

শ্রীলংকায় স্পিন গুরুত্বপূর্ণ হবে সে বিষয়েও তারা সচেতন বলে উল্লেখ করেন তিনি।

তিন স্পিনার রকিবুল, সিয়াম এবং মিনহাজের উপর নিজের আত্মবিশ্বাস আছে উল্লেখ করে অধিনায়ক বলেন, ‘অবশ্যই শ্রীলংকার কন্ডিশন ভিন্ন। সেখানে স্পিন সহায়ক উইকেটে খেলতে হতে পারে। এশিয়া কাপের জন্য আমরা স্পিন নিয়ে কাজ করেছি। সুযোগ পেলে যে কেউ সেটা কাজে লাগাতে পারবে আশা করছি।’

এশিয়া কাপে ভাল করার বিষয়ে আশাবাদী ইংল্যান্ড সিরিজে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩২০ রান করা তৌহিদ হৃদয়ও।

তৌহিদ বলেন, ‘ইংল্যান্ড সিরিজটা খুব ভাল কেটেছে। যদিও আমরা নিজেদের লক্ষ্য পূরন করতে পারিনি। ফাইনালে হেরে যাওয়াটা আমাদের জন্য ছিল খুবই হতাশার। শিরোপা জিততে পারলে ভাল লাগতো। সেখানকার কন্ডিশন কঠিন ছিল। ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি ইংল্যান্ডের তুলনায় শ্রীলংকার কন্ডিশন অনেক সহজ হবে।’

সবশেষে তিনি বলেন, ‘শ্রীলংকায় আমার প্রথম লক্ষ্য হবে উ্ইকেটে থিতু হওয়া। সিনিয়রদের কাছ থেকে শুনেছি উইকেটে থিতু হতে পারলে ব্যাট করতে সহজ সহয়। ব্যাটিংয়েও বেশ মজা পাওযা যায়। উইকেটে থিুত হতে পারলে বড় রান করতে পার।’

দল: তানজিদ হাসান তানিম, পারভেজ হোসেন ইমন, অনিক সরকার, মাহমুদুল হাসান জয়, তৌহিদ হৃদয়(সহ: অধি:) শামিম হোসেন, শাহাদাত হোসেন, আকবর আলী(অধিনায়ক), মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরি, রকিবুল হাসান, শরিফুল ইসলাম, তানজিম হাসান সাকিব, শাহিন আলম, মিনহাজুর রহমান, আশরাফুল ইসলাম সিয়াম।

স্ট্যান্ড বাই: হাসান মুরাদ, অমিত হাসান, অভিষেক দাস, রশিদ হোসেন, প্রান্তিক নওরোজ নাবিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar