Home / খবর / নগরী জলমগ্ন

নগরী জলমগ্ন

বৃষ্টির মাত্রা কমছে না। ফলে বৃষ্টিজনিত বিভিন্ন দুর্ভোগ থেকেও মুক্তি মিলছে না নগরবাসীর। গতকাল বুধবারও নগরীতে ভারী বর্ষণ হয়েছে। এতে আবারও তলিয়ে যায় শহরের নিম্নাঞ্চল। কয়েক ঘণ্টা স্থায়ী ছিল এ জলজট। এ কারণে বিভিন্ন সড়কে তীব্র যানজট হয়েছে। গত সোমবারের জলাবদ্ধতায় পানি ঢুকে গিয়েছিল অনেক বাসা-বাড়িতে। পরদিন মঙ্গলবার পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিকের দিকে যাচ্ছিল। কিন্তু গতকাল আবারও দুর্দশা নেমে আসে নগরবাসীর জীবনে। এদিকে গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে সৃষ্ট জলজটের কারণে বেহাল অবস্থায় আছেন রেয়াজউদ্দিন বাজারের ব্যবসায়ীরা। বৃষ্টির সময় জোয়ার এলে এখানকার ফলমণ্ডি, তামাকুমন্ডি লেইন এবং কাঁচাবাজারে পানি উঠে যাচ্ছে। আবার পানি কমলে জমে থাকে কাদা। এতে স্থবির হয়ে পড়েছে ব্যবসা-বাণিজ্য।
গতকালের পরিস্থিতি : পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ ও পূর্বাভাস কর্মকর্তা উজ্জ্বল কান্তি পাল জানিয়েছেন, গতকাল দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টায় নগরীতে ১১০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। অবশ্য সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সর্বশেষ ২৪ ঘন্টায় বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ১৪৫ দশমিক ৮ মিলিমিটার। একই সময়ে সন্দ্বীপ উপজেলায় ৩৭ মিলিমিটার এবং সীতাকুণ্ডে ৯১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। তবে গতকাল সকালে তেমন বৃষ্টি হয়নি। দুপুরের পর থেকে বিকেল পর্যন্ত একটানা বৃষ্টি হয়েছে। এতে তলিয়ে যায় নগরীর নিম্নাঞ্চল। গতকাল দুপুর ১২টার দিকে আগ্রাবাদ বাণিজ্যিক এলাকা, চৌমুহনী ও আগ্রাবাদ কে ব্লকে হাঁটু পানি দেখা গেছে।
একই সময়ে প্রবর্তক মোড়েও প্রায় কোমর সমান পানি ছিল। একই অবস্থা ছিল বহদ্দারহাট এলাকায়। এছাড়া চকবাজার, ফালাহ গাজী মসজিদের সামনে, গণি কলোনি, কালাম কলোনি, খাজা রোডে পানি জমেছিল। খাজা রোডের বিভিন্ন বাসা-বাড়িতেও পানি প্রবেশ করে। দুপুরে ষোলশহরস্থ শিক্ষাবোর্ডের সামনের সড়কেও পানি ছিল হাঁটুর ওপর। এছাড়া বিকেল ৫টার দিকে মুরাদপুরের মোহাম্মদপুর সড়ক এবং চকবাজারের কাতালগঞ্জে পানি দেখা গেছে।
জলজটের কারণে গতকালও যানজট ছিল। দুদকের সাবেক বিশেষ পিপি অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান আজাদ যানজটজনিত দুর্ভোগের কথা জানিয়ে দৈনিক আজাদীকে বলেন, ‘সন্ধ্যা ৬টায় কোর্ট বিল্ডিং থেকে বেরিয়েছি। রাত সাড়ে ১০টায়ও কাঠগড় পৌঁছাতে পারিনি।’ এদিকে জমে থাকা পানির কারণে অঙিজেন মোড় ও আশেপাশের এলাকায় তীব্র যানজট ছিল।
রেয়াজউদ্দিন বাজারে অর্ধকোটি টাকার ক্ষতি : গতকাল রেয়াজউদ্দিন বাজার তামাকুমন্ডি লেইনে দুপুর ২টার পর থেকে পানি উঠতে শুরু করে। প্রায় দেড় থেকে দুই ঘণ্টা স্থায়ী ছিল এ জলজট। এ সময় নুপুর মার্কেট, ইসলাম মার্কেট, রেজওয়ান কমপ্লেঙ, নালা হকার মার্কেট, প্রফেসর মার্কেট, হাজী জানে ম্যানশন, আরশাদ মার্কেট, রহমান ম্যানশন, মোহাম্মদী প্লাজা ও গোলাম রসুল মার্কেটের বিভিন্ন দোকানে পানি ঢুকে যায়।
তামাকুমন্ডি লেইন বণিক সমিতির প্রচার সম্পাদক মো. মহিউদ্দিন বলেন, দুইদিনের বৃষ্টিতে তামাকুমন্ডি লেইনের ব্যবসায়ীদের আনুমানিক ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। গতকালও তামাকুমন্ডি লেইনে প্রায় হাঁটু পানি ছিল বলে জানান তিনি।
আজকের পূর্বাভাস : আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস কর্মকর্তা মেঘনাথ তঞ্চঙ্গা জানান, আজ বৃহস্পতিবার আকাশ মেঘলা থেকে সাময়িকভাবে মেঘাচ্ছন্ন থাকতে পারে। একইসঙ্গে অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে। তবে কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে। অতি ভারী বৃষ্টির কারণে চট্টগ্রাম বিভাগের পাহাড়ি এলাকায় কোথাও কোথাও ভূমিধ্বসের সম্ভাবনা রয়েছে। চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরের জন্য কোনো সতর্কতা সংকেত নেই।
জোয়ার-ভাটার সময়সূচি : কর্ণফুলী নদীতে আজ প্রথম ভাটা শুরু হবে সকাল ৮টা ২১ মিনিটে এবং দ্বিতীয় ভাটা হবে রাত ৮টা ৪৫ মিনিটে। প্রথম জোয়ার গত রাত ২টা ৫মিনিটে শুরু হয়েছিল। দ্বিতীয় জোয়ার আসবে বিকেল ২টা ৪৭ মিনিটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar