Home / আর্ন্তজাতিক / প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আনুষ্ঠানিক প্রচারে

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আনুষ্ঠানিক প্রচারে

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা শুরু করেছেন । যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা রাজ্য থেকে ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণা শুরু করেন তিনি। খবর বিবিসির।

২০১৬ সালের নির্বাচনে ফ্লোরিডা ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান প্রার্থীর অন্যতম প্রধান লড়াই ক্ষেত্র হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিল। সেবার অল্প ভোটে হিলারিকে হারিয়ে ডেমোক্রেটদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এ রাজ্যটির সব ইলেকটোরাল ভোট ছিনিয়ে নিয়েছিলেন ট্রাম্প।

অরল্যান্ডোতে প্রচার সমাবেশের শুরুতে রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ফ্লোরিডাকে ‘দ্বিতীয় বাড়ি’ অ্যাখ্যা দিয়ে তাকে চার বছরের জন্য ফের নির্বাচিত করতে সমর্থকদের আহ্বান জানান।

ডেমোক্রেটরা ‘যুক্তরাষ্ট্রকে টুকরো টুকরো’ করার চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে ফের শ্রেষ্ঠ করার চেষ্টা চালিয়ে যাবো। এখানে আজ আমি আপনাদের সামনে দাঁড়িয়েছি- দ্বিতীয় মেয়াদে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়ার আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু করতে।’

২০১৬ সালে নিজের নির্বাচনী প্রচারণাকে ‘একটি দুর্দান্ত রাজনৈতিক আন্দোলন’ অভিহিত করে ট্রাম্প বলেন, ‘যতদিন পর্যন্ত আপনারা এ দলকে (ট্রাম্প প্রশাসন) রাখবেন, আমাদের অনেকদূর যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আমাদের ভবিষ্যৎ আর কখনোই এতটা উজ্জ্বল কিংবা ধারাল ছিল না।’

আগের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারে অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে খড়্গহস্ত হওয়ার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, এবারের প্রচারে তার ধারাবাহিকতা রক্ষায় জোর দেন তিনি। ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বীরা মেক্সিকো সীমান্ত অতিক্রম করা অবৈধ অভিবাসীদের বৈধতা দিতে পারে বলেও সতর্ক করেছেন ট্রাম্প।

জরিপ সংস্থা গ্যালাপ বলছে, দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে কখনোই ট্রাম্পের সমর্থন ৪৬ শতাংশের ওপরে ওঠেনি। গত মাসে এ সমর্থন নেমে এসে ৪০ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। ট্রাম্পের পছন্দের জরিপ প্রতিষ্ঠান রাসমুসেনের রেটিংয়েও মার্কিন প্রেসিডেন্টের প্রতি জনসাধারণের আস্থা কখনোই ৪৮ শতাংশের ওপরে দেখা যায়নি।

ফক্স নিউজের জনমত জরিপে ২০২০ সালের নির্বাচনে প্রার্থীতা ঘোষণা করা সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের চেয়েও ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা ১০ পয়েন্ট কম দেখা গেছে।

আরেক জনপ্রিয় ডেমোক্র্যাট সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্সের চেয়েও ট্রাম্প পিছিয়ে আছেন ৯ পয়েন্ট। জরিপে মার্কিন প্রেসিডেন্টের চেয়ে এলিজাবেথ ওয়ারেন ও কমলা হ্যারিসকেও সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে।

ট্রাম্প সমর্থকরা অবশ্য এসব জরিপকে মোটেও আমলে নিচ্ছেন না। তারা বলছেন, ২০১৬ এর নির্বাচনের আগেও বিভিন্ন জরিপে রিপাবলিকান প্রার্থীকে ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বির পেছনেই দেখানো হয়েছিল। ফলাফলে দেখা গেছে বিপরীত চিত্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar