Home / খবর / প্রেসিডেন্ট ফিলিস্তিনিদের পক্ষে বিশেষ দোয়ায় অংশ নিলেন

প্রেসিডেন্ট ফিলিস্তিনিদের পক্ষে বিশেষ দোয়ায় অংশ নিলেন

বিশ্বব্যাপী প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে  জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ায় আমেরিকার বিরুদ্ধে। মুসলিম বিশ্বে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে ব্যাপক প্রতিবাদ। এরই মধ্যে আজ শুক্রবার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ফিলিস্তিনিদের পক্ষে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট অ্যাড. আব্দুল হামিদ। খুতবার আগে বায়তুল মোকাররম মসজিদের খতিব প্রফেসর মাওলানা মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন বলেন, জাতিসংঘকে উপেক্ষা করে আমেরিকা জেরুজালেমকে ইসরায়ালের রাজধানী ঘোষণা করেছে।

 এর প্রতিবাদে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিন্দা জানিয়েছেন। সকল মুসলমানকে এক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। অন্যদিকে ফিলিস্তিনি মুসলমানদের পক্ষে বিশেষ দোয়ায় অংশ নিতে আজ বায়তুল মোকাররম মসজিদে নামাজ পড়তে আসেন প্রেসিডেন্ট অ্যাড. আব্দুল হামিদ। নামাজ শেষে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেন প্রেসিডেন্টসহ সাধারণ মুসল্লিরা। অন্যদিকে নামজ শেষে মসজিদের বাইরে বিক্ষোভ সমাবেশ করে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের ঢাকা মহানগর শাখা, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ও ইসলামী ঐক্য আন্দোলনসহ বেশ কয়েকটি ইসলামী দল। বিক্ষোভ সমাবেশে হেফাজতের ঢাকা মহানগর সভাপতি মা. নূর হোসেন কাশেমী বলেন, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে তলব করে কারণ দর্শান। জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী স্বীকৃতি দেয়া থেকে সরে না আসলে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সকল প্রকার সম্পর্ক ছিন্ন করুন। এসময় তিনি বলেন, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অবশ্যই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে হবে। অন্যথায় সারা বিশ্বের মুসলিম উম্মাহ আন্দোলন চালিয়ে যাবে। সমাবেশ থেকে তিনি আগামী ১৩ই ডিসেম্বর বুধবার আমেরিকার দূতাবাস ঘেরাওয়ের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। হেফাজতে ইসলামী ঢাকা মহানগর সহ-সভাপতি মা. আব্দুর রব ইউসুফি বলেন, ইসরাইল একটি পুতুল রাষ্ট্র ও যুক্তরাষ্ট্র তার পৃষ্ঠপোষক। তাদের রাজধানী ঘোষণা করতে হয় আমেরিকাকে। এসময় তিনি বলেন, জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানীর হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার মাধ্যমে মুসলমানদের কলিজায় আঘাত করেছে ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর মাধ্যমে গোটা মুসলিম বিশ্ব আজ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। এই স্বীকৃতি থেকে সরে না আসলে কোন মুসলিম দেশে মার্কিন দূতাবাস থাকবেনা। রাশিয়ার মতো ধ্বংস হয়ে যাবে আমেরিকা।
বিক্ষোভ সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা মহানগর হেফাজতে ইসলামীর যুগ্ম মহাসচিব মা. আহমদ আলী কাশেমী, ঢাকা মহানগর হেফাজত নেতা মা. শরীফ বিল্লাহ, মা. আজিজুল হক, মা. মুজিবুর রহমান পেশওয়ারী, মা. মাহফুজুল হক, ড. আহমদ আব্দুল কাদির প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar