Home / খবর / যে কারো সঙ্গে জোট হতে পারে নির্বাচনের স্বার্থে

যে কারো সঙ্গে জোট হতে পারে নির্বাচনের স্বার্থে

 জাতীয় পার্টি (জাপা) অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে যে কোন জোটের হয়ে নির্বাচন করতে পারে। এটা আওয়ামী লীগ কিংবা অন্য যে কেউয়ের সঙ্গে হতে পারে বলে জানিয়েছেন জাপার নেতারা ।

আজ রোববার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলা পাইলট স্কুলমাঠে সকাল ১০টায় সমাবেশ শুরু হয়। জাপার সমাবেশে নেতারা বর্তমান সরকারকে ইঙ্গিত করে বলেন, আপনারা ক্ষমতায় থেকেও নির্বাচন করেছেন আবার ক্ষমতার বাহিরে থেকেও নির্বাচন করেছেন । আপনাদের বিবেক আছে। সুষ্ঠু নির্বাচন দিয়ে  আপনারা দেশের জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দিন ।
সমাবেশে প্রধান অতিথি জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ তার উপর বিভিন্ন সময়ের অত্যাচারের কথা তুলে ধরে বলেন, আমি শান্তিতে নেই। আমার মত লাঞ্চিত, বঞ্চিত নিপীড়িত এবং নির্যাতিত আর কোন নেতা নেই। কে নির্বাচনে আসলো আর কে
আসলো না আমরা তা দেখবো না।

সমাবেশে সকাল থেকেই আশেপাশের এলাকা থেকে নেতাকর্মীরা মাঠে আসতে শুরু করেন। বেলা ১১টার সময় নবীনগর কলেজ মাঠে এরশাদকে বহনকারী হেলিকপ্টার অবতরণ করে। এরপরে উপজেলা ডাকবাংলায় বিশ্রাম নিয়ে বেলা সাড়ে ১১টায় জাপা চেয়ারম্যান মঞ্চে আসেন। এছাড়া মঞ্চে ছিলেন দলের কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারসহ দলের কেন্দ্রীয় নেতারা। তিনি যখন মঞ্চে আসেন তখন মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। তারা করতালির মাধ্যমে এরশাদকে অভিবাধন জানান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদ বলেন, আমি সত্য কথা বলি। আমি মুসলমান। একটা উপজেলায় এতলোক আমি কখনো দেখিনি। এটির কারণ মানুষ
পরিবর্তন চায়, বেঁচে থাকতে চায়। এরশাদ বর্তমান সময়ের দেশের অবস্থা তুলে ধরে বলেন, আমাদের সময় কোন ব্যাংক লুটপাট ছিল না, রাস্তায় লাশ পড়ে থাকত না। আর এখন রাস্তায় লাশ পড়ে থাকে এ কারণেই মানুষ পরিবর্তন চায়। আমি চাই সব দল নির্বাচনে আসুক। নির্বাচনে কারচুপি হউক সেটা আমি চাই না। আমাদের বার বার ধ্বংস করার চেষ্টা করা হয়েছে, আমাকে জেলে দেয়া হয়েছে তবুও আমি হারিনি। আমার সময়ে পয়সা ছিল না তারপরে যে উন্নয়ন করেছি সেটা মানুষ মনে রেখেছে।

এরশাদ বলেন, ক্ষমতা ছাড়ার পর আমি একটা দিনও শান্তিতে থাকতে পারিনি। এখনো শান্তিতে নেই। যদি আবার ক্ষমতায় আসতে পারি তাহলে শান্তি ফিরে আসবে, সমস্ত ব্যথা-বেদনা দূর হবে। জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় দেখে মরতে চাই আমি।
আগামী নির্বাচনে নবীনগর আসনের জাপা প্রার্থী কাজী মামুনুর রশীদকে
নেতাকর্মীর কাছে পরিচয় করিয়ে দিয়ে বলেন, আমি আমার পুরনো আসন ফিরে পেতে
চাই। মামুনকে আপনাদের কাছে রেখে গেলাম। আপনারা আগামী নির্বাচনে মামুনকে ভোট দিয়ে সংসদে পাঠাবেন।
জাপার কো-চেয়ানরম্যান জিএম কাদের বলেন, এরশাদ যে সিদ্ধান্ত নেন সেদিকেই
ক্ষমতার পালা ঝুলে পড়ে। আমরা আগে যে উৎসবমুখর নির্বাচন দেখতাম তা এখন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। এখন সরকার এবং সরকার বিরোধীরা স্ব-বিরোধী কথা বলে
যাচ্ছে। একদল বিভিন্ন দাবি দিচ্ছে আরেকদল তা মানবে না।
কাদের বলেন, আগামী নির্বাচনে আমরা যে কোন এক জোটের হয়ে নির্বাচন করব।
সেটা মহাজোটের সঙ্গে হতে পারে। আবার অন্য কোন দলের সঙ্গে হতে পারে। অনেকে বলেন, আপনারা একেক সময় একেক ধরণের কথা বলেন এটা আদর্শের বিরুদ্ধে যায়
না? আমরা আছি সুশাসনের পক্ষে। আমরা মানুষকে সুশাসন দিয়েছিলাম।
এরপরে যারা সরকারে ছিল তারা দেশটাকে মাদকে ভরে ফেলছে, এটা থেকে মানুষ পরিত্রাণ চায় ।
মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, আগামী দিনে জোট হতে পারে আওয়ামী লীগের সঙ্গে আবার একাও নির্বাচন হতে পারে।
তিনি বলেন, আমরা কোন ধ্বংসে বিশ্বাস করি না। আমরা উন্নয়নে বিশ্বাস  করি। আমরা ১৯৮১ সালে যখন জেলে ছিলাম তখনও এই আসনে আমাদের প্রার্থী জয়ী হয়ে ছিলো। মানুষ আমাদের উন্নয়নের কথা ভুলেনি। আজকের সমাবেশে এত লোক তারই প্রমাণ ।
এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন জাপা প্রেসিডিয়াম সদস্য, সুনীল শুভ রায়, মেজর (অব. খালেদ আখতার,এসএম ফয়সাল হোসেন চিশতী, জাপা চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, উপজেলা জাপার সদস্য সচিব মোসলেম উদ্দিন মৃধা প্রমুখ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar