Home / অন্যান্য / অপরাধ / শিশুর লাশ উদ্ধারের মামলায় বাবা তিন দিনের রিমান্ডে

শিশুর লাশ উদ্ধারের মামলায় বাবা তিন দিনের রিমান্ডে

আদালত রাজধানীর বাংলামোটরে আড়াই বছরের ছেলে নূর সাফায়েতের লাশ উদ্ধারের ঘটনার মামলায় নিহতের বাবা নুরুজ্জামান কাজলের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর হাকিম ধীমান চন্দ্র মন্ডলের আদালত এ রিমান্ডের আদেশ দেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহবাগ থানার এসআই চম্পক চক্রবর্তী আসামিকে আদালতে হাজির করে দশদিনের রিমান্ডের আবেদন জানান।

আসামিপক্ষে অ্যাডভোকেট এমএ সাত্তার রিমান্ড বাতিলপূর্বক জামিনের আবেদন জানান। শুনানিতে তিনি দাবি করেন, যিনি মামলাটি দায়ের করেছেন (নিহতের মা এবং আসামির স্ত্রী) তিনি চার মাস আগে দুই শিশু সন্তানকে ফেলে রেখে চলে যান। তাকে ফিরে আসতে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হলেও ফিরে আসেননি। এখন এসে মামলা করেছেন। যাওয়ার সময় তিনি বাচ্চাদের নিয়ে যাননি। ঘটনার দিন কাজল তার সন্তান মারা যাওয়ার বিষয়টি ইমামকে দিয়ে মাইকে ঘোষণা দেওয়ান। এরপর ইমামকে বাসায় এনে কোরআন শরিফ পড়ান। আসামির বাচ্চা মারা যাওয়ায় মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

তাছাড়া মগবাজারে বাবার বাড়ি লিখে দেওয়া নিয়ে আসামির সঙ্গে স্ত্রী, তার ভাই-বোনের সঙ্গে ঝামেলা চলছে। সবকিছু মিলিয়ে আসামি অসুস্থ। তার চিকিৎসা দরকার। আর তিনি যদি হত্যা করেন তাহলে বিচার হবে। তার আগে চিকিৎসা দরকার। তিনি জীবিত থাকলে তার বিচার হবে।
উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তিনদিনের রিমান্ড ম

জুর করে আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে তা কার্যকরের আদেশ দেন।

রিমান্ড শুনানির আগে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে আসামি দাবি করেন, তার সন্তানের জ্বর ছিল। চারদিনের দিন ঘুমের মধ্যে বাচ্চাটি মারা যায়।
বুধবার সকালে বাংলামোটরের একটি বাসায় শিশু সাফায়েতের লাশ নিয়ে বাবা ঘর বন্ধ করে বসে আছেন- এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। কিন্তু তিনিই কাউকে বাসায় ঢুকতে দিচ্ছিলেন না। জীবিত সন্তানকে বুকে নিয়ে এবং অপর সন্তানের লাশ টেবিলের ওপর রেখে পাশে রামদা নিয়ে বসেছিলেন। অবশেষে ছয় ঘণ্টা পর ঘরে ঢুকে লাশ এবং অপর এক সন্তানকে উদ্ধার করে পুলিশ। সঙ্গে বাবাকেও গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়। ওই ঘটনায় কাজলের বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ায় স্ত্রী মা মালিহা আক্তার হত্যা মামলা দায়ের করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar