Home / অন্যান্য / অপরাধ / হিজড়া বানানোর সিণ্ডিকেট, দুই যুবকের লিঙ্গ কর্তন ঝিনাইদহে

হিজড়া বানানোর সিণ্ডিকেট, দুই যুবকের লিঙ্গ কর্তন ঝিনাইদহে

দুই যুবককে অপহরণের পর লিঙ্গ কেটে দেয়া হয়েছে হিজড়াদের দলে ভেড়াতে ঝিনাইদহে সাগর হোসেন (২২) ও প্রান্ত সরকার (১৮) নামে । এ নিয়ে আদালতে দু’টি মামলা হয়েছে। আদালত বিষয়টি তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে নির্দেশ দিয়েছেন।

চাকলাপাড়ার সাইকেল মিস্ত্রী উজ্জল সরকার জানান, তার ছেলে ঝিনাইদহ সরকারি বালক বিদ্যালয়ে পড়তো। চাকলাপাড়ার এক হিজড়া তাকে বিপথগামী করে তোলে। উপায় না পেয়ে ছেলেকে একটি মামলা দিয়ে জেলে পাঠায়। জেলে যাওয়ার পর হিজড়ারা বেসামাল হয়ে পড়ে।

প্রান্ত সরকার হিজড়া না হলেও তার জন্মনিবন্ধন, হিজড়া সনদ ও সমাজসেবার প্রত্যায়নপত্র জোগাড় করে তাকে জেল থেকে বের করে আকাশী নামে এক হিজড়া।

জামিনে মুক্ত হয়ে প্রান্ত সরকার আর বাড়ি ফেরেনি।

এদিকে সন্তানের জন্য পাগলপ্রায় উজ্জল সরকারের পরিবার। এরই মধ্যে প্রান্ত ও সাগরকে অপহরণ করে খুলনা অঞ্চলের একটি গুদামঘরে আটকে রেখে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে দু’জনেরই লিঙ্গ পরিবর্তন করে হিজড়ারা। এ নিয়ে ঝিনাইদহের আদালতে একটি মামলা হয়।

ওই দুই যুবক জানান, আদালত বিষয়টি তদন্তের জন্য পিবিআইকে দায়িত্ব দিয়েছেন। ঝিনাইদহ শহরের আরাপপুর এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে সাগর হোসেন জানান, গত ১২ই জুলাই রাত ৯ টার দিকে তিনি ঝিনাইদহ শহরের চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে আরাপপুর যাচ্ছিলেন। পথে নবগঙ্গা নদীর উপর ব্রিজ থেকে একটি কালো রংয়ের মাইক্রোবাসে করে জোর করে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর খুলনা ফুলতলা এলাকায় নিয়ে একটি গুদামঘরে আটকে রাখে। ওই রাতেই তাকে অচেতন করে ডাক্তারের মাধ্যমে অস্ত্রোপচার করে।

সাগর আরও জানান, জ্ঞান ফেরার পর তিনি দেখতে পান তার পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলা হয়েছে। তিনি আরও দেখতে পান পাশে প্রান্ত সরকার নামের আরেকজনকেও একই অবস্থায় ফেলে রেখেছে।

প্রান্ত সরকার জানান, হিজড়ারা গত ১১ই জুলাই সন্ধ্যা ৭ টার দিকে তাকে শহরের তাসলিমা ক্লিনিকের সামনে থেকে তুলে নিয়ে যায়। এরপর ফুলতলা এলাকায় নিয়ে অচেতন করে তার শরীরে অস্ত্রোপচার করে।

সাগর ও প্রান্ত জানান, তারা এই অন্যায়ের বিচার চেয়ে ঝিনাইদহ আদালতে পৃথক দু’টি মামলা করেছেন। এই মামলায় তারা আসামী করেছেন শহরের কাঞ্চননগর এলাকার বাসিন্দা আকাশী ওরফে খোকন (৪৫), ভুটিয়ারগাতি এলাকার বাসিন্দা আনোয়ারা ওরফে আবু সাঈদ (৪২), উদয়পুর এলাকার বাসিন্দা কারিশমা ওরফে লিয়াকত (৩০) ও ব্যাপারীপাড়া এলাকার মনোয়ারাকে (৫০)। দুই যুবকের আইনজীবী এড. মো. রবিউল ইসলাম জানান, তারা এই অন্যায়ের বিচার চেয়ে আদালতে পৃথক মামলা দায়ের করেছেন। আদালত বিষয়টি তদন্তের জন্য পিবিআইকে দায়িত্ব দিয়েছেন।

ঝিনাইদহ পিবিআইয়ের এসআই মো. তৌহিদুল ইসলাম বৃহস্পতিবার খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আদালতে হিজড়াদের বিরুদ্ধে দায়ের করা ৩টি মামলা পিবিআই তদন্ত করছে। তিনি কেবল প্রান্ত সরকারের মামলাটি দেখভাল করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar