Home / খবর / আর সেই পুলিশ নয় এই পুলিশ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আর সেই পুলিশ নয় এই পুলিশ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বর্তমান সরকারের নানা উদ্যোগে পুলিশ বাহিনীতে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে বলে দাবি করেছেন । তিনি দাবি করেন, ১০ বছর আগের পুলিশ আর এখনকার পুলিশ এক নয়। এখনকার পুলিশের ওপর জনগণের আস্থা রয়েছে।

বুধবার গাজীপুরের টঙ্গীতে আগুনে ভস্মীভূত টাম্পাকো ফয়েলস কারখানার নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন মন্ত্রী। ২০১৬ সালের ১০ সেপ্টেম্বর ওই কারখানায় বিস্ফোরণে ৪১ জনের মৃত্যু ছাড়াও আহত হয়েছিলেন ৫০ জনেরও বেশি।

এই দুর্ঘটনার পর টাম্পাকো মালিক বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দ মকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে দুটি হত্যা মামলা হয়। আর দুর্ঘটনার পর কয়েক মাস আত্মগোপনে থাকা মকবুল গত নভেম্বরে জামিন পেয়েছেন আদালত থেকে। এই অনুষ্ঠানে সৈয়দ মকবুল হোসেনকে ভূয়সী প্রশংসায় ভাসান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এই অনুষ্ঠান শেষে অন্য বিষয়েও সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা মোতাবেক পুলিশ বাহিনীকে ঢেলে সাজানো হয়েছে। দশ বছর আগের পুলিশ আর আজকের পুলিশ এক নয়।’

বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা নিরাপত্তা রক্ষায় পুলিশ বাহিনীর ভূমিকা অনস্বীকার্য। তবে প্রায়ই বাহিনীটির কিছু সদস্যের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি, নির্যাতন, ঘুষের অভিযোগ উঠে। তবে এসব অভিযোগকে ব্যতিক্রম হিসেবে দেখতে চায় পুলিশ। তাদের দাবি, বেআইনি কাণ্ডে জড়িত হলে পুলিশকেও সাজা পেতে হয়। আর সংস্কার ও নানা ঘটনায় পুলিশ অনেক জনবান্ধব হয়েছে বলেও দাবি করেন বাহিনীটির কর্মকর্তারা।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এই পুলিশ জনতার পুলিশ, এই পুলিশ জনতার মঙ্গলের জন্য কাজ করে। এই পুলিশ বাহীনির উপর জনগণের আস্থা রয়েছে।’

‘আগে পুলিশ দেখলে মানুষ দূরে থাকত, দূরত্ব বজায় রাখত, পুলিশকে এড়িয়ে চলত। কিন্তু বর্তমানে পুলিশকে জনগন সবধরনের সহযোগিতা করছে, এবং জনগণের বিপদে-আপদে পাশে দাঁড়াচ্ছে পুলিশ। সেজন্যই আমরা ভয়ঙ্কর সব জঙ্গি ও আগ্নি সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি’- বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

পুলিশের উন্নয়ন ও সংস্কারে সরকারের নেয়া নানা ভূমিকা বর্ণনা করে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শুধু শিল্প পুলিশ নয়, আমরা নৌ-পুলিশ, ট্যুরিস্ট পুলিশ, পিবিআই, সাইবার ক্রাইম ইউনিট, কাউন্টার টেরেরিজম ইউনিট তৈরি করেছি। পুলিশকে সুসজ্জিত করছি, পুলিশকে উন্নতমানের প্রশিক্ষণ দিচ্ছি। পুলিশ বাহিনীকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে জনবল বৃদ্ধি করছি, তাদের আবাসন সুবিধা বৃদ্ধি করেছি।’

টাম্পাকো গ্রুপের চেয়ারম্যান সৈয়দ মকবুল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি আজমত উল্লা খান, সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ।

মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি, পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাখাওয়াত হোসেন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*