Home / অন্যান্য / নির্বাচন / নির্বাচনে লড়বেন ভাতিজা আসিফ এরশাদকে উপেক্ষা করেই

নির্বাচনে লড়বেন ভাতিজা আসিফ এরশাদকে উপেক্ষা করেই

এরশাদের ভাতিজা হাসাইন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় তাকে দল থেকে চূড়ান্তভাবে সতর্ক করা হলেও তিনি তা আমলে নেননি । তিনি বলেছেন, চাচা এরশাদ কিংবা দল যা-ই করুক তিনি নির্বাচনে লড়বেনই।

আসন্ন রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্তের বাইরে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় শাহরিয়ার আসিফকে আজ শনিবার চূড়ান্ত সতর্ক নোটিশ দিয়েছে জাতীয় পার্টি। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ আসিফ নির্বাচন নিয়ে তার অনড় অবস্থানের কথা জানান সাংবাদিকদের।

এরশাদের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায় স্বাক্ষরিত ওই সতর্কবর্তার চিঠিতে আসিফকে বলা হয়, আসিফ শাহরিয়ার যদি পার্টির চেয়ারম্যানের সিদ্ধান্ত অমান্য করে রসিক নির্বাচনে প্রার্থী হন কিংবা তার প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করেন তাহলে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে তাকে পার্টির প্রাথমিক সদস্য পদ বাতিলসহ সব পদ-পদবি থেকে বহিষ্কার করা হবে।

এই সতর্কবার্তা নাকচ করে এরশাদের ভাতিজা হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ বলেন, ‘নির্বাচন করবই, ইনশাআল্লাহ। রংপুরের লোকজনের মনে হয় না প্রতীক নিয়ে খুব একটা মাথাব্যথা আছে।’
নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে মাঠে অনেক কথা উঠতে পারে বলেই মনে করেন আসিফ। তার ভাষ্য, ‘অনেকে অনেক কথা বলবে। সব কথা সত্যি না। আমি জানি স্বতন্ত্র নির্বাচন করব। এই জন্য আমি দলের প্রেসিডেন্টের ছবি দেইনি।’

আপনি এরশাদের ছেলের মতো, তার সিদ্ধান্তের বাইরে নির্বাচন করা দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ এবং পারিবারিক বলয় ভেঙে গেল কি না- এমন প্রশ্নের উত্তরে আসিফ বলেন, ‘পুরো পার্টি উনার হাতে আছে আমরা তা বিশ্বাস করছি না। আমার মনে হয় উনিও অনেককে দিয়ে পরিচালতি হচ্ছেন। উনি তো বিরোধীদলীয় নেতা নন। আমি জানি না উনি কী করবেন।’

এলাবাররমানুষ তাকে নির্বাচনে চায় বলে দাবি আসিফের। তিনি বলেন, ‘আমি এমপি ছিলাম। ওই এলাকার অনেক ভোটার আছে, তারা আমাকে চান। মানুষ এখন আর অতটা মার্কা দেখেন না। দেখলে গত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী পরাজিত হতো না।’

এরশাদের ভাতিজা আসিফ এরই মধ্যে রসিক নির্বাচনে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এ নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা দেখা দিয়েছে রংপুরে।

আর এরশাদের জাতীয় পার্টি দলের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar