Home / মাদক / মিয়ানমার মাদক নিয়ন্ত্রণে সহযোগিতা করছে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মিয়ানমার মাদক নিয়ন্ত্রণে সহযোগিতা করছে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল মাদক নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে ভারতের কাছ থেকে সহযোগিতা পেলেও মিয়ানমারের কাছ থেকে সহযোগিতা পাওয়া যাচ্ছে না বলে সংসদকে জানিয়ছেন।

রবিবার বিকালে জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান মন্ত্রী। মাদক নির্মূলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চেষ্টার পাশাপাশি সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার কথাও বলেন তিনি।

সংসদ সদস্য ইয়াসিন আলী মন্ত্রীর কাছে জানতে চান, মাদক মামলায় বেশিরভাগই ছাড়া পেয়ে যায়। তাদের দ্রুত সাজার জন্য কোনো আইন করা হবে কি না।

জবাবে মন্ত্রী বলেন, মাদকের প্রভাব আমাদের দেশে প্রকট আকার ধারণ করেছে। একেক সময় একেক ধরনের মাদক আমাদের দেশে প্রবেশ করে। আগে আসত গাঁজা, পরে আসত ফেনসিডিল, এখন লেটেস্ট ঢুকছে ইয়াবা।

‘আমাদের দেশে কোনো মাদক তৈরি হয় না। কিন্তু ইয়াবার ভয়ংকর আগ্রাসন থেকে আমরা রেহাই পাচ্ছি না।’

মাদকের বিষয়ে পার্শ্ববর্তী দেশের সঙ্গে সরকার যোগাযোগ রক্ষা করে চলছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত আমাদেরকে সহযোগিতা করছে। মিয়ানমারের সঙ্গেও আমাদের কথা হচ্ছে, কিন্তু তারা আমাদেরকে ঠিক সেই রকম সহযোগিতা করছে না।’

তবে ‘আমরা বসে নেই’ জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী কাজ করছে, আমাদের কোস্টগার্ড, আমাদের বিজিবি কাজ করছে মাদক দমনের জন্য।’

‘ইয়াবা ট্যাবলেট এতই ছোট যে কেউ হাতে করে নিয়ে আসতে পারে। এটার বিস্তার এত দ্রুত গতিতে বাড়ছে যে শুধু আইন করে শাস্তি দিয়ে দমানো যাচ্ছে না’।

এই মুহূর্তে জেলখানার যত বন্দী আছে তার সিংহভাগ মাদক বিক্রিতে জড়িত বা মাদকাসক্ত বলেও জানান মন্ত্রী।

‘অনেক সময় অনেক প্রতিকূলতার জন্য মাদকসেবীদের, মাদক ব্যবসায়ীরা শাস্তি থেকে বেঁচে যায় নানা কায়দা কৌশল করে।’

মাদকের বিরুদ্ধে সরকার সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে চায় বলেও জানান মন্ত্রী। বলেন, ‘এই দেশের এনজিও, এই দেশের শিক্ষক, এই দেশের পেশাজীবী, এই দেশের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা সবাইকে সামাজিক আন্দোলনে শরিক হওয়ার আহ্বান করছি।’

আরেক সংসদ সদস্য ফখরুল ইমাম জানতে চান, মাদক ও জঙ্গি অপরাধের জন্য মোবাইল কোর্টের শাস্তি কম, সরকার সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করবে কি না।

জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘মাদক নিয়ে সর্বোচ্চ সাজার বিধান আছে। আইন প্রয়োগের জন্য কতগুলো বাধ্যবাধকতার জন্য অনেক সময় সেই জায়গাটিতে যেতে পারছি না।’

‘প্রধানমন্ত্রী মাদকের জন্য জিরো টলারেন্সের কথা বলেছেন, আমরা এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি, শিগগির আপনাদেরকে জানাব।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar