Home / খবর / ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে সড়ক দুর্ঘটনায়

১১ জনের মৃত্যু হয়েছে সড়ক দুর্ঘটনায়

১১ জনের মৃত্যু হয়েছে অন্তত চার জেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায়  । নিহতদের মধ্যে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ৪ জন, নাটোরে ৩ জন, মাদারীপুরে ২ ও ফেনীতে ২ জন রয়েছে। বিস্তারিত আমাদের প্রতিনিধিদের রিপোর্টে-
ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি জানান, ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস উল্টে খাদে পড়ে চারজন নিহত ও কমপক্ষে ৪৪ জন আহত হয়েছেন। আহতদের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল সকাল সাড়ে দশটার দিকে ঈশ্বরগঞ্জ পৌরশহরের ভূঁইয়া ফিলিং স্টেশনের কাছে চরহোসেনপুর নামক স্থানে ওই দুর্ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা জানান, গতকাল সকাল সাড়ে দশটার দিকে ঈশ্বরগঞ্জ পৌরশহরের ভূঁইয়া ফিলিং স্টেশনের কাছে ভৈরবগামী শ্যামল ছায়া পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস এক সাইকেল আরোহীকে সাইড দিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে বাসটি রাস্তার পাশে পুকুরে পড়ে যায়।

এতে ঘটনাস্থলে ১ নারীসহ ৪ জন নিহত ও কমপক্ষে ৪৪ জন আহত হয়েছেন।
খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস স্থানীয়দের সহায়তায় আহতদের উদ্ধার করে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুই জনের মৃত্যু হয়। আহতদের মধ্যে ১৫ জনকে মারাত্মক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে
সেখানে আরো একজনের মৃত্যু হয়।
বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি জানান, নাটোরের বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের কাছিকাটা ১০নং ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় দ্রুতগামী একটি বাসের সঙ্গে সংঘর্ষে মোটরসাইকেল আরোহী তিন কিশোরের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটলে ঘটনাস্থলে তাদের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন- গুরুদাসপুরের মসিন্দা মাছপাড়ার সাইদুল ইসলামের ছেলে বায়েজিদ হোসেন (১৬), জগেন্দ্রনগরের মালেক প্রামাণিকের ছেলে হাকিম সেখ (১৩) ও একইগ্রামের ইয়াকুব হোসেনের ছেলে রাকিবুল ইসলাম (১৭)।
প্রত্যক্ষদর্শী, নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, তারা তিনজনে সকালে মোটরসাইকেলে ঘুরতে বেরিয়ে মহাসড়কে আসে। এ সময় ময়মনসিংহ থেকে যশোরগামী কাজী পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস (ঢাকা মেট্রো ব-১৪-৮৭৩৯) পেছন দিকে থেকে মোটরসাইকেলটিকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়। মোটরসাইকেলটি বাসটির নিচে চাপা পড়ে দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং একপর্যায়ে আগুন লেগে বাস সহ মোটরসাইকেলটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। খবর পেয়ে স্থানীয়রা ও পরে বড়াইগ্রাম, গুরুদাসপুর থানা সহ বনপাড়া হাইওয়ে থানা পুলিশ এবং নাটোর ফায়ার সার্ভিসের টিম ঘটনাস্থলে এসে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নাটোর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।
ফেনী প্রতিনিধি জানান, ফেনীতে মিনিট্রাক ও কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষে দুইজন নিহত ও একজন আহত হয়েছে। শুক্রবার ভোররাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফেনী সদর উপজেলার ছনুয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
মহাসড়কের মুহুরীগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (উপ-পরিদর্শক) মো. মাহবুবুল আলম জানান, শুক্রবার রাত তিনটার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফেনী সদর উপজেলার ছনুয়া এলাকায় সড়কের পাশে পার্কিং করা ছিল চট্টগ্রাম অভিমুখী একটি মিনিট্রাক। এ সময় চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে একটি দ্রুতগতির কাভার্ডভ্যান মিনিট্রাকটিকে সজোরে ধাকা দিয়ে উল্টে যায়। এতে কাভার্ডভ্যানে থাকা চালক ও সহকারীসহ তিনজন গুরুতর আহত হয়।
খবর পেয়ে পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে ফেনী জেলা সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুইজনকে মৃত ঘোষণা করে। আহত অপর জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় ভোরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপতালে প্রেরণ করে।
মাদারীপুর প্রতিনিধি জানান, সদর উপজেলার সপ্তম চীনমৈত্রী সেতুর  টোল প্লাজায় পিকআপ ও পায়ে চালিত ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে নারীসহ দুজন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন দুজন। গতকাল বেলা আড়াইটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। হতাহতরা সবাই ইটভাটার শ্রমিক। আহতদের মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar