Home / খবর / আক্রান্ত ৬১৪ জন ছাড়িয়েছে, তবুও সেবা দিচ্ছেন নার্সরা

আক্রান্ত ৬১৪ জন ছাড়িয়েছে, তবুও সেবা দিচ্ছেন নার্সরা

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিনিয়তই বাড়ছে। করোনার প্রকোপ দিন দিন বেড়েছে চলছে। নানা আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেও করোনার রোগীদের সেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হচ্ছেন চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী। পুলিশ ও গণমাধ্যমকর্মীদের আক্রান্তের তালিকাও দিন দিন বাড়ছে।

রবিবার পর‌্যন্ত দেশের সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে মোট ৬১৪ জন নার্স করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। সরকারি হাসপাতালে কর্মরতরা অসুস্থ হলে এবং কোনো কারণে মারা গেলে সরকার থেকে প্রণোদনা পাবেন। কিন্তু বেসরকারি হাসপাতালের নার্সরা অনেকে ঠিকমত বেতন ভাতা পাচ্ছেন না এমন অভিযোগও আছে। তবে এতকিছুর পরও রোগীদের সেবা দিতে গিয়ে দিনে দিনে আক্রান্ত হচ্ছেন এসব নার্সরা। যাদের মধ্যে অন্তঃসত্ত্বা নার্সও আছেন।

সোসাটটি ফর নার্সেস সেফটি এন্ড রাইটস নামের সংগঠনের পক্ষ থেকে দেয়া তথ্যমতে, এখন পর‌্যন্ত আক্রান্তদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালের ৪৪৫ জন। বেসরকারি হাসপাতালে ১৬৯ জন নার্স হয়েছেন। তবে স্বস্তির খবর, এই সময়ের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৫০ জন নার্স।

তথ্যমতে, আক্রান্তদের সিংহভাগই ঢাকা বিভাগের হাসপাতালে কর্মরত। এই বিভাগে সরকারি ও বেসরকারি মিলে ৪৮১ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এরপর আছে ময়মনসিংহ বিভাগ। এই বিভাগে ৪৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া বরিশালে আটজন, রংপুরে ১৩ জন, সিলেটে ৩০ জন, খুলনায় ১৩ জন, চট্টগ্রামে ১৫ জন, রাজশাহীতে আটজন নার্স আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে ১শ জন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আর কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৫ শর মতে নার্স।

সংগঠনটির থেকে পাওয়া তথ্যমতে, ঢাকায় সরকারি হাসপাতালের মধ্যে ঢাকা মেডিকেলে ১০৫ জন নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর বাইরে সলিমুল্লাহ মেডিকেলে ১৮ জন, সোহরাওয়ার্দীতে ২৫ জন, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে ৩৭ জন, বক্ষব্যাধি ও নিউরোসায়েন্সে তিনজন করে, কিডনি হাসপাতালে ১০ জন, নিটোরে দুইজন, কুয়েত মৈত্রী ও কুর্মিটোলাতে সাতজন করে, মুগদা মেডিকেলে ২৩ জন, ইউনানী ও আয়ুর্বেদীতে একজন, শিশু হাসপাতালে চারজন, বিএসএমএমইউতে তিনজন নার্স আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়।

বেসরকারি হাসপাতালের মধ্যে সবচেয়ে বেশি নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে। এ পর্যন্ত এখানে ২৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন প্রাণঘাতী ভাইরাসটিতে।

গাজীপুরের কেপিজে হাসপাতালে সাতজন, পান্থপথের বিআরবিতে ১৫ জন, শাহবাগের বারডেমে ২০ জন, এভারকেয়ারে (সাবেক অ্যাপোলো) তিনজন, ইউনাইটেড ও স্কয়ারে ১০ জন করে, পপুলার (ধানমন্ডি) তিনজন, আদদ্বীন মেডিকেল দুইজন, ইনসাফ বারাকা ছয়জন, কেরাণীগঞ্জের আল বারাকায় দুইজন, ডেল্টা ও ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেলে একজন করে, ইবনে সিনা (ধানমন্ডি) দুইজন, ইউনিভার্সেল মেডিকেল ও আইসিডিডিআরবিতে পাঁচজন করে, বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ২০ জন, গ্রীণ লাইফ হাসপাতালে চারজন, রিজেন্ট হাসপাতাল (মিরপুর) পাঁচজন, ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন চারজন, বাংলাদেশ মেডিকেল (ধানমন্ডি) একজন, সিএমএইচ ক্যান্সার হাসপাতালে তিনজন নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এছাড়াও সিলেটের জালালাবাদ রাগিব-রাবেয়া মেডিকেলে তিনজন, সিলেট ওমেন মেডিকেল ও চট্টগ্রামের মা ও শিশু হাসপাতালে একজন করে নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এদিকে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত নার্সদের ব্যক্তিগত সুরক্ষা ও অন্যান্য সুবিধা নিয়ে ক্ষোভ আছে তাদের মধ্যে। নার্সদের দাবি, পুরোপুরি সুরক্ষা সামগ্রী পাননি বেশিরভাগ নার্স। পিপিই আর মাস্ক বেশিরভাগ পেয়েছেন। পিপিইর মান নিয়েও আছে অভিযোগ।

সোসাটটি ফর নার্সেস সেফটি এন্ড রাইটসের সাব্বির মাহমুদ তিহান ঢাকা বলেন, নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও আমাদের সহকর্মীরা করোনা আক্রান্তদের নিরবচ্ছিন্নভাবে সেবা দিতে গিয়ে নিজেরা আক্রান্ত হচ্ছেন। এই তালিকা ক্রমেই দীর্ঘ হচ্ছে। সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে মানহীন পূর্ণাঙ্গ সুরক্ষা সামগ্রীর অপ্রতুলতা ও সংক্রমণ প্রতিরোধের প্রশিক্ষণ নিশ্চিত না করায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এতে নার্সদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। তাই যতদ্রুত সম্ভব সরকারের কাছে নার্সদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি করছি। অন্যথায় দেশের স্বাস্থ্যসেবা হুমকিতে পড়তে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: