Home / চট্টগ্রাম / আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারের সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন

আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারের সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন চট্টগ্রাম নগরীকে ক্লিন ও গ্রিন সিটিতে রূপান্তরের লক্ষ্যে নগরীর লালখান বাজার থেকে মুরাদপুর পর্যন্ত আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারের সৌন্দর্যবর্ধন ও রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্প এবং পে পার্কিংয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন । সোমবার বিকালে লালখান বাজার জমিয়তুল ফালাহ জামে মসজিদের সামনে এই ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, সিটি মেয়রের একান্ত সচিব মো. আবুল হাসেম, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ এ কে এম রেজাউল করিম, খুলশী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রণব চৌধুরী, ট্রেড ম্যক্সের সত্ত্বাধিকারী হেলাল আহমদ, রাজনীতিক ছিদ্দিক আহমদ, দিদারুল আলম মাসুম, মো. আজাদ, ওয়াহিদুল আলম শিমুল, আবদুল রশিদ লোকমানসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

সিটি মেয়র বলেন, বাণিজ্যিক রাজধানীর গুরুত্ব অনুধাবন করে চট্টগ্রাম নগরীতে সৌন্দর্যবর্ধনের বিভিন্ন পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারের উপরে এবং নিচে চসিক অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী সৌন্দর্যবর্ধন ও রক্ষণাবেক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছে চসিক। আউটসোসিং প্রকল্পের আওতায় নগরীর বিভিন্ন স্থানের ফ্লাইওভার, আইল্যান্ড, মিডআল্যান্ডসহ ফুটপাত সৌন্দর্যবর্ধন কাজ করছে চসিক।

অনুরূপভাবে বীর মুক্তিযোদ্ধা আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারে সৌন্দর্যবর্ধন ও রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্পের ফ্লাইওভারের নিচের ল্যান্ড স্কেপে ভাস্কর্য স্থাপন, সড়ক দ্বীপের দু’পাশে প্রাচীর ঘেষে বাগান/সবুজায়ন, আলোকসজ্জা, গ্রিল সংস্কার, বৈদ্যুতিক পুলে আকর্ষণীয় সৌন্দর্যবর্ধন, সিলিং এ আলোকসজ্জা, পে পার্কিং ও আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার, অনুমোদিত স্থানে নগরবাসীর জন্য বিনামূল্যে পানি পানের ব্যবস্থা, ফ্লাইওভারকে পোষ্টার, ব্যানার ও আবর্জনামুক্ত রাখা, আধুনিক গণশৌচাগার, পিলার ও স্পেনের মধ্যবর্তীস্থানে সুন্দর বাগান, টাওয়ার এলইডি ডিসপ্লে, ট্রাইভিশন, এলাইডি বক্স, টানা লাইটিং এবং ফ্লাইওভারের উপরে এ্যালুমিনিয়াম বক্স, এলাইডি বক্স ইত্যাদি থাকবে। এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করতে ট্রেড ম্যাক্সের ১৮ কোটি টাকা ব্যয় হবে। এর বিপরীতে ট্রেড ম্যাক্স চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে প্রতিবছর এক কোটি টাকা দেবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this:
Skip to toolbar