আজ কোনো কর্মসূচি নেই বিএনপির খালেদা জিয়ার জন্মদিনে

16

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ৭৮তম জন্মদিন আজ ১৫ আগস্ট। ৭৭ পেরিয়ে ৭৮ বছরে পা দিলেন তিনি। এই দিনে ঘটা করে কেক কেটে তার জন্মদিন পালনের আনুষ্ঠানিকতা থেকে বেরিয়ে এসেছে বিএনপি। সেই ধারাবাহিকতায় খালেদা জিয়ার জন্মদিনে আজ কোনো কর্মসূচি রাখা হয়নি। তবে পরের দিন আগামীকাল ১৬ আগস্ট সারাদেশে দোয়া মাহফিল কর্মসূচি করার ঘোষণা দিয়েছে দলটি।

জানা গেছে, বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রতি বছর ব্যক্তিগত উদ্যোগে গুলশানে চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে হাজির হয়ে খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে কেক কাটা এবং তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হতো। এই আনুষ্ঠানিকতা থেকে ২০১৬ সাল থেকে বিরত রয়েছে দলটি।
advertisement

এদিকে, গতকাল রোববার রাত ১২টা ১ মিনিটে খালেদা জিয়াকে পরিবারের সদস্যরা ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। পরিবারের বাইরে বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল সে সময় উপস্থিত ছিলেন। রাতে খালেদা জিয়াকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও বড় ছেলে তারেক রহমান তার পরিবারের সদস্যরা।

বিএনপির ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৪৫ সালের ১৫ আগস্ট দিনাজপুরে খালেদা জিয়া জন্মগ্রহণ করেন। পাঁচ ভাইবোনোর মধ্যে তিনি তৃতীয়। বাবা এস্কান্দর মজুমদার, মা বেগম তৈয়বা মজুমদা। পৈত্রিক নিবাস ফেনীর ফুলগাজী হলেও শৈশব ও কৈশর কেটেছে দিনাজপুরেই বাবার কর্মস্থলে।

১৯৬০ সালের আগস্টে বগুড়ার ক্যান্টনমেন্টে কর্মরত সেনা কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন খালেদা জিয়া। সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত জিয়াউর রহমান বীরউত্তম ও খালেদা জিয়া দম্পতির দুই পুত্র সন্তান। বড় সন্তান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সপরিবারে লন্ডনে অবস্থান করছেন। ছোট সন্তান আরাফাত রহমান কোকো ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি ৪৫ বছর বয়সে মালয়েশিয়ায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

১৯৯১ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর ১৯৯৩ সালে প্রথম জাকজমকপূর্ণভাবে জন্মদিন পালন করে দলটি। এই সময়ে প্রতি বছর ১৪ আগস্ট ১২টা ১ মিনিটে কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন করতেন খালেদা জিয়া।

বিএনপির দায়িত্বশীল নেতারা জানান, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। একই দিনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। এ অবস্থায় ২০১৭ সালে ভিশন ২০৩০ রূপকল্পে খালেদা জিয়া প্রতিহিংসা ও প্রতিশোধের রাজনীতির বিপরীতে এক নতুন ধারার রাজনৈতিক সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার করেন।

খালেদা জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে সর্বশেষ কেক কাটা হয় ২০১৫ সালে। এরপর ২০১৬ সালে দেশব্যাপী বন্যা, গুম ও খুনের কারণ দেখিয়ে জন্মদিন পালন কর্মসূচি বাতিল করা হয়। ২০১৭ সালের চিকিৎসার জন্য ১৫ জুলাই থেকে ১৮ অক্টোবর পর্যন্ত লন্ডনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বাসায় ছিলেন খালেদা জিয়া। ওই বছর লন্ডনে অথবা দেশেও জন্মদিন পালন করা হয়নি।

২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি দুর্নীতি মামলায় আদালত সাজার রায় দিলে খালেদা জিয়া কারাগারে যান। ওই বছর ১৫ আগস্ট কেক কাটার পরিবর্তে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সর্বশেষ ২০১৯ সালে বিতর্ক এড়াতে খালেদা জিয়ার ৭৫তম জন্মদিনে কেক কাটার পরিবর্তে তার রোগ মুক্তি ও সুস্বাস্থ্য কামনা করে দলটি দোয়া মাহফিল কর্মসূচি পালন করে। কারাবন্দী খালেদা জিয়া ওই সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

করোনা সংক্রামণ পরিস্থিতিতে সরকারের নির্বাহী আদেশে মুক্ত হয়ে ২০২০ সালের ২৫ মার্চ থেকে গুলশানের ভাড়া বাসা ফিরোজায় আছেন খালেদা জিয়া। গত দুই বছর দোয়া ও মিলাদ মাহফিল কর্মসূচি করে বিএনপি। একই কর্মসূচি এবারও নেওয়া হয়েছে।