Home / রাজনীতি / আজ বিপন্ন দেশের স্বাধীনতা : ফখরুল

আজ বিপন্ন দেশের স্বাধীনতা : ফখরুল

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দেশের অর্থনীতি বর্তমানে সবচেয়ে ভঙ্গুর অবস্থায় বলে মন্তব্য করেছেন । শনিবার বিকালে এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব এই মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, আজকে সমৃদ্ধির যে কথা বলা হচ্ছে-এটা শুধু মানুষকে বোকা বানানো ছাড়া আর কিছু নয়। বাংলাদেশের অর্থনীতি আজকে সবচেয়ে ভঙ্গুর অবস্থায়। শুধু তাই নয়, দেশে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে গেছে এবং সমস্ত প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভেঙে ফেলা হয়েছে অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেশের স্বাধীনতা আজ বিপন্ন, বাংলাদেশের মানুষের অধিকারকে ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে, অধিকার নেই বললেই চলে। আজকে ইতিহাসকে বিকৃত করা হচ্ছে। তাদের (ক্ষমতাসীন) লক্ষ্য শহীদ জিয়াকে। তারা ভেবেছিলো যে, জিয়াউর রহমানকে হত্যা করবার পরে এই জাতীয়তাবাদের যে আদর্শ, বাংলাদেশের স্বাধীন-সার্বভৌমত্বে যে পরিচিতি সেই পরিচিতি ধ্বংস করে দিয়ে তারা তাদের মতো করে আবার সেই ১৯৭২-৭৫ সাল পর্যন্ত যে শাসন ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনবে এবং তারা চেষ্টা করছে। আমি বলব, বিএনপির এখন মূল দায়িত্ব ৭ নভেম্বরের যে চেতনা, স্বাধীনতা-সার্বভৌত্বকে সুসংহত করবার যে চেতনা, গণতন্ত্রকে ফিরে পবার যে চেতনা, সেই চেতনাকে সমুন্নত রাখবার জন্য সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে এবং তার নেতৃত্ব অবশ্যই বিএনপিকে দিতে হবে।
তিনি বলেন, দেশনেত্রীকে মুক্তি এবং গণতন্ত্র ফিরে পাবার লক্ষ্যে আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে আজ বিএনপি সুসংগঠিত হচ্ছে।

আমরা বিশ্বাস করি এর মাধ্যমে জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে সক্ষম হবো এবং দলমত নির্বিশেষ সকলকে এক করে একটা জাতীয় ঐক্যের মাধ্যমে আমরা এই অপশক্তিকে পরাজিত করে একটা নিরপেক্ষ সরকার ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে নির্বাচন করে আমরা আবার জনগনের শাসনকে প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবো, জনগনের গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবো।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে ৭ নভেম্বরের যে ডাক যেটা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেছেন মানুষ বাঁচাও দেশ বাঁচাও। মানুষকে বাঁচাতে হলে দেশকে বাঁচাতে হলে অবশ্যই আমাদেরকে গণতন্ত্রের মাতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুকত্ত করতে হবে, অবশ্যই গণতন্ত্রকে মুক্ত করতে হবে। আসুন ৭ নভেম্বরের চেতনাকে সামনে নিয়ে আমরা সামনে দিকে এগিয়ে যাই তারেক রহমানের নেতৃত্বে।
৭ নভেম্বর উপলক্ষে বিভিন্ন জেলায় দলের অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে পুলিশি বাধা প্রদান ও নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তারের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, তারা ৭ নভেম্বরকে ভয় পায়, তারা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে ভয় পায়, বিএনপিকে ভয় পায়। তাই যখনই বিএনপি সংগঠিত হয়, জনগনের পাশে এসে দাঁড়ায় তখন সেটাকে নতসাত করার জন্যে তারা বিভিন্নভাবে নিপীড়ন-নির্যাতন করে ভয় সৃষ্টি করে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা চিরস্থায়ী করতে চায়। দেশের জনগন কখনোই পরাধীনতাকে মেনে নেয়নি, কখনো মেনে নেবে না।

৭ নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সকালে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা শেরে বাংলা নগরে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে পুস্পমাল্য অর্পন করে শ্রদ্ধা জানান।

বিকালে এই ভার্চুয়াল আলোচনার শুরুর প্রারম্ভে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট রিসার্চ সেন্টার প্রকাশনায় ‘ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর : সিপাহী-জনতার বিপ্লব ও বাংলাদেশের নবজন্ম’ ই-বুকের উদ্বোধন করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আজকের এই বাংলাদেশ ৭ নভেম্বরের বাংলাদেশ নয়, আজ এই বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ নয়। আমাদেরকে ৭ নভেম্বরের চেতনায়, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এদেশের জনগনের কাছে ফিরিয়ে আনতে হবে। বাংলাদেশের জনগন এদেশের মালিক, সেই মালিকানা জনগনকে ফিরিয়ে দিতে হবে এবং সেটিা দিতে হলে অবশ্যই আমাদেরকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে,আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব  সুসংহত করতে হবে, আমাদের একটা স্বাধীন পররাষ্ট্র নীতি থাকতে হবে, আমাদের অর্থনীতিকে মজবুত করতে হবে। সেটা করতে হলে আজকে যারা অতীতেও গণতন্ত্র হত্যাকারী, অর্থনীতি ধবংসকারী তাদের দিয়ে এটা সম্ভব হবে না। সেজন্য শহীদ জিয়াউর রহমানের প্রতিষ্ঠিত দল বিএনপিকেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও ৭ নভেম্বরের চেতনা বাস্তবায়নের জন্য সেই দায়িত্ব নিতে হবে।

মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে ও দলের প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর পরিচালনায় আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মইন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক মাহবুবউল্লাহ বক্তব্য রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: