আর সময় দেয়া যাবে না সরকারকে

100

বর্তমান সরকারকে আর সময় দেয়া যাবে না এবং দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য রাজপথের বিকল্প নেই খুলনায় আয়োজিত সমাবেশে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতারা বলেছেন, । নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে খুলনা মহানগরে এ সমাবেশ করে বিএনপি। খুলনা মহানগরের দুই স্থানে সমাবেশ করার অনুমতি চাওয়া হলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অনুমতি না দেয়ায় শহরের কেডি ঘোষ রোডস্থ দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করেন বিএনপি’র নেতাকর্মীরা।

সমাবেশকে কেন্দ্র করে এর আগে সকাল থেকে মহানগরীর প্রত্যেকটি মোড়ে মোড়ে বিপুল পরিমাণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়। সমাবেশস্থলে আসার সময় নেতাকর্মীদের বাধা দেয়ার অভিযোগ করেছেন বিএনপি’র নেতারা। শত বাধা-বিপত্তির পরেও সমাবেশে দলটির বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অংশ নেন। বিকাল ৩টায় সমাবেশ শুরুর আগেই পুরো এলাকা লোকারণ্য হয়ে যায়। এর আগে সকালে রাজধানী ঢাকা থেকে খুলনার সমাবেশে নেতাকর্মীদের মধ্যে যোগ দেন সর্বশেষ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। পথিমধ্যে তার গাড়িবহরে পুলিশ এবং সরকার পক্ষের লোকরা বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ব্যারিস্টার এম শাহজাহান ওমর বীরউত্তম বলেন, একটা বিষয় আমার কাছে খুবই খারাপ লাগে যখন অনেকেই বলেন, আমরা শেখ হাসিনার কাছে অনেক কিছু দাবি করি, ভিক্ষা করি। আরে ভাই আমরা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এবং বেগম খালেদা জিয়ার দল করি। আমরা কারো কাছে কোনো কিছু ভিক্ষা চাই না, আমরা আমাদের সবকিছু আদায় করে নেই। রাজপথে আমাদের সবকিছু আদায় করতে হবে।

তিনি বলেন, আজকে মিয়ানমারে মানুষ সামরিক জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। পুলিশের গুলির সামনে মাথা নত করছে না তারা। যদি এখন কথা না বলি তাহলে আমাদের এই স্বাধীন বাংলাদেশও এই সরকার পুরোপুরি ধ্বংস করে দেবে। এ সরকারের আর বেশিদিন নেই। এ দেশের যত অন্যায় অত্যাচার হচ্ছে সরকারের লোকরা সব করছে। তাই আসুন এই অবৈধ স্বৈরাচারী সরকারকে হটিয়ে দেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করি।

বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, এই সমাজে থাকতে হলে এই সমাজের নিয়ম মানতে হবে। উল্টাপাল্টা কোনো কিছু করে রেহাই পাওয়া যাবে না। পথে পথে যেখানেই আটকানো হয়েছে, যত পুলিশ অফিসারকে জিজ্ঞেস করলাম যে, কেন আপনারা এরকম করছেন? বলছে আমি জানি না, ওপর মহলের নির্দেশ। দ্বিতীয় জায়গায় এসে জিজ্ঞেস করলাম কেন এরকম করছেন? বলছে আমি জানি না, উপরের নির্দেশ। আরে ভাই কত উপরে? সবার উপরে তো আল্লাহর আরশ।

ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, এখন যে দেশ আমরা দেখছি এর জন্য কি এই দেশ স্বাধীন হয়েছিল? এ দেশ লুটেরারা শেষ করে দিয়েছে। দেশে হায়েনার রাজত্ব কায়েম করেছে। এভাবে আর একটা দেশ চলতে পারে না। দেশে সত্যিকার গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হলে রাজপথের আন্দোলনের বিকল্প নেই। তাই আর দেরি নয়। রাজপথেই আমাদের আসল ফায়সালা করতে হবে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, আজকে এই প্রোগ্রামের নমুনা দেখে প্রমাণিত হয় দেশে কতোটা পুলিশি শাসনতন্ত্র কায়েম হচ্ছে। এই দেশে এখন আমাদের ভোটের অধিকার নেই, কথা বলার অধিকার নেই। কিছু বললেই মামলা হামলা গুম, খুন করা হয়। এই অন্যায় অত্যাচার আর মেনে নেয়া যায় না। সারা দেশে আমাদের দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এর জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আর আমরা এই বলদ মার্কা নির্বাচন কমিশন দেখতে চাই না। আমরা আরেকটি নিরপেক্ষ কমিশন এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দাবি করছি।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি’র মনোনীত প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন বলেন, আজকের এই সভা পণ্ড করার জন্য সরকারের পেটুয়া বাহিনী আমাদের সব নেতাকর্মীকে পদে পদে বাধা দিয়েছে। অনেক হয়েছে। আর না। আমরা আর কোনো বাধা মানবো না। এই দেশ মুক্তিযোদ্ধাদের দেশ। আমরা কারো দাসত্ব মানবো না। তাই আসুন সকলে মিলে এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হই।

খুলনা মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুর সভাপতিত্বে এ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন- বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মশিউর রহমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রার্থী মজিবুর রহমান সারোয়ার, রাজশাহী সিটি করপোরেশনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সৈয়দ মেহেদী হাসান রুমি, বিএনপি’র তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, খুলনা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ ইসলাম অমিত, বিএনপি’র সহ তথ্যবিষয়ক সম্পাদক আমিরুজ্জামান খান শিমুল প্রমুখ।