কোন মতানৈক্য নেই ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে দলে: মন্টু

31

দলটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে দলে কোন মতানৈক্য নেই বলে জানিয়েছেন । শনিবার দুপুরে গণফোরাম কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সর্বশেষ রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেন, সকল ত্যাগী নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে তৃণমূল থেকে দলকে সংগঠিত করতে হবে। দেশব্যাপী চলমান রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক সংকট মোকাবিলায় আসুন কার্যকর গণতন্ত্র ও গণঅধিকার প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হই। নবজাগরণের মধ্য দিয়ে গণফোরামের পতাকাতলে সংগঠিত করার প্রত্যয় নিয়ে সকল নেতা-কর্মীদের মাঠ পর্যায়ে কাজ করার আহবান জানান। আমরা স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে দেশব্যাপী বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করব।
সাবেক মন্ত্রী  ও বাংলাদেশের অন্যতম সংবিধান প্রণেতা  অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ বলেন, দেশে চলমান লুটপাটের বিরুদ্ধে, পরিবারতান্ত্রিক শাসনের বিরুদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কর্তৃত্ববাদী দুঃশাসনের অবসান ঘটানোর আহবান জানান। এখন ধান ও পেঁয়াজের মৌসুম কিন্তু সরকার পেঁয়াজ আমদানির আদেশ দিয়েছে। এগুলো কৃষি ও কৃষকের বিরুদ্ধে একটি কৌশলী চক্রান্ত ।
এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, এই অগণতান্ত্রিক ও অনিশ্চয়তায় ঘেরা রাষ্ট্রের জন্য কি রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্যদিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছিলাম? আজ স্বাধীনতার সকল মূলনীতি ভূলুণ্ঠিত ।

জনগণ মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। জানমালের কোন নিশ্চয়তা নেই, সুবিচার থেকে বঞ্চিত। তিনি এ দুঃশাসনের বিরুদ্ধে ছাত্র-যুব সহ দেশের সর্বস্তরের জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে দুর্বার আন্দোলনের আহবান জানান। সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন এড. জগলুল হায়দার আফ্রিক, মহিউদ্দিন আব্দুল কাদের, আইয়ুব খান ফারুক, খান সিদ্দিকুর রহমান, লতিফুল বারী হামিম, মুহা. রওশন ইয়াজদানী, জান্নাতুল মাওয়া, যুবনেতা মুহম্মাদ উল্লাহ মধু, ছাত্রনেতা সানজিদ রহমান শুভসহ গণফোরাম এর কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।