ক্যান্টিনে আর সস্তায় খাবার মিলবে না, ভারতীয় সাংসদদের সুখের দিন শেষ

27

পাঁচরকম সবজি,  ডাল, পাঁপড়, দই এর ভেজ থালি ৩৫ টাকা, চিকেন কারি-রাইস ৫০ টাকা,  থ্রি কোর্স মিল অর্থাৎ স্যুপ-চিকেন রোস্ট, ডেজার্ট ১০৬ টাকা, ওমলেট-টোস্ট আড়াই টাকা,  চা-কফি পঞ্চাশ পয়সা। ভাবছেন তো এমন স্বর্গরাজ্য কোথায় আছে? বেশিদূর যেতে হবে না। রাজধানী দিল্লির সেন্ট্রাল হলের কন্টিনেই লোকসভা ও রাজ্যসভার সদস্যদের জন্যে এই চিপ ক্যান্টিন এতদিন চালু ছিল। এবারের বাজেট অধিবেশন থেকে এই ক্যান্টিনের ঝাঁপ বন্ধ হচ্ছে।  ২৫ টাকায় আর মিলবে না চিকেন কাটলেট কিংবা ১২ টাকায় সাদা দোসা। কেন্দ্রীয় সরকার সস্তার এই ক্যান্টিনের ঝাঁপ বন্ধ করে দিচ্ছেন। মাথায় হাত সাংসদদের, সংসদ কভার করতে যাওয়া সাংবাদিকদেরও। তারাও এতদিন এই সুলভ ক্যান্টিনের সুবিধা পেয়ে আসছিলেন। এই ক্যান্টিন চালানোর জন্যে কেন্দ্রীয় সরকারকে বছরে বেশ কয়েক কোটি টাকার ভর্তুকি দিতে হত।

কোভিড অবস্থার পর আর ভর্তুকি দিতে রাজি নয় সরকার। ফলে, জনগণের সেবায় নিয়োজিত সাংসদদের এবার জনগণের দামেই সংসদে খাবার খেতে হবে। ক্যান্টিন এর পরিচালনার ক্ষেত্রেও বদল আসছে। এতদিন ক্যান্টিন  চালাতো নর্দান রেল। এখন থেকে সংসদের ক্যান্টিনের দায়িত্বে ভারতীয় পর্যটন উন্নয়ন নিগমের। আমজনতা সাংসদদের সুলভ ক্যান্টিন বন্ধ হওয়ার খবরে খুশি। তাদের বক্তব্য, জনগণের সেবা করেন যারা তারা করদাতাদের টাকায় এই চিপ ক্যান্টিন উপভোগ করবেন কেন?  সাধারণ মানুষ রাস্তায়ঘাটে কি দামে খাবার খায় আইনপ্রণেতারা তা একবার উপলব্ধি করুন!