জমির দলিলে স্বাক্ষর মৃত্যুর পাঁচ বছর পর !

32

২০১৪ সালে টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কালমেঘা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবর রহমান মারা গেছেন। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মৃত্যুসনদও তাই বলছে। অথচ সেই মৃত মজিবর রহমানই ২০১৯ সালে দলিলে স্বাক্ষর দিয়ে জমি বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে।

মৃত্যুর পাঁচ বছর পর দলিলে স্বাক্ষর করে বিক্রি করা ওই জমি নিয়ে এখন দেখা দিয়েছে বিপত্তি। এ নিয়ে মৃত মজিবর রহমানের মেয়ে নাজমুন নাহার সখীপুর সাবরেজিস্ট্রার অফিসের দুই দলিল লেখকের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মজিবর রহমানের মৃত্যুর পাঁচ বছর পর সখীপুর সাবরেজিস্ট্রার অফিসের দুই দলিল লেখক এম এ লতিফ ও আবু হানিফ মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবর রহমানের স্বাক্ষর জাল করে তার ২৭ শতাংশ জমি অন্যের নামে লিখে দিয়েছেন। দলিলে দেখানো হয়েছে ২০১৯ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর মৃত মজিবর রহমানের বাড়িতেই কমিশন গঠন করে দলিলটি রেজিস্ট্রি করা হয়। পরে বিষয়টি জানতে পেরে মুজিবুর রহমানের বড় মেয়ে নাজমুন নাহার গত ২১ সেপ্টেম্বর ওই দুই দলিল লেখকের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

অভিযুক্ত দলিল লেখক এম এ লতিফ জানান, এ বিষয়ে আগেও একটি মীমাংসা হয়েছে। নতুন করে অভিযোগ দেওয়ার পর স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি মীমাংসার দায়িত্ব নিয়েছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারজানা আলম জানান, দলিলটি জাল, এটা অনেকটা প্রমাণিত। ওই দলিল বাতিলের জন্য অভিযোগকারীকে আদালতের শরণাপন্ন হওয়ারও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।