জেএন্ডজে’র ভ্যাকসিন প্রয়োগ বন্ধের পরামর্শ রক্ত জমাট বাঁধার রিপোর্টের পর

56

ফেডারেল হেলথ এজেন্সিগুলো বিরল রক্তজমাট বাঁধার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যাওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রে জনসন এন্ড জনসনের ভ্যাকসিন প্রয়োগ স্থগিত রাখার পরামর্শ দিয়েছে। অন্তত ৬ ভ্যাকসিন গ্রহণকারীর রক্ত জমাট বাঁধার রিপোর্ট পাওয়ার পর মঙ্গলবার এ পরামর্শ প্রদান করা হয়। এর আগে ইউরোপীয় ওষুধ নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিড ভ্যাকসিনের সঙ্গে রক্ত জমাট বাঁধার যোগাযোগ রয়েছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। এরইমধ্যে এই বিরল রক্ত জমাট বাঁধার ঘটনায় একাধিক মৃত্যুর খবরও নিশ্চিত হয়েছে।

জনসন এন্ড জনসন হচ্ছে বিশ্বের একমাত্র এক ডোজের কোভিড ভ্যাকসিন। জনসন এন্ড জনসন এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনকে করোনা মহামারি মোকাবেলার সবথেকে বড় অস্ত্র মনে করা হচ্ছে। তবে জনসন এন্ড জনসনের ভ্যাকসিন প্রয়োগের পর রক্ত জমাট বাঁধার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার পর ভ্যাকসিন কার্যক্রম বাধাগ্রস্থ হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ নিয়ে বুধবার আলোচনায় বসতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন বা সিডিসির উপদেষ্টা কমিটি।

সেখানে জনসন এন্ড জনসনের ভ্যাকসিনের সঙ্গে রক্ত জমাট বাঁধার এসব ঘটনার সম্পর্ক পর্যালোচনা করা হবে। এরপর সেই প্রতিবেদন দেখবে যুক্তরাষ্ট্রের ফুড এন্ড ড্রাগ এডমিনিস্ট্রেশন।
জনসন অ্যান্ড জনসন ভ্যাকসিন ১৩ দিনে প্রায় ৬৮ লাখ ডোজ প্রয়োগ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬ জনের শরীরের রক্ত জমাট বাঁধার পাশ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। এদের প্রত্যেকের বয়স ১৮ থেকে ৪৮ বছর এবং সবাই নারী। ভ্যাকসিন গ্রহণের ৬ থেকে ১৩ দিন পর তাদের শরীরের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার লক্ষণ ধরা পড়ে। তবে এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অত্যন্ত বিরল বলে জানিয়েছে সিডিসি এবং এফডিএ।
জনসন এন্ড জনসন বলেছে, তারা ওষুধ নিয়ন্ত্রকদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। এখনো রক্ত জমাট বাঁধার সঙ্গে ভ্যাকসিনের সরাসরি সম্পর্ক থাকার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।