ব্রেকিং নিউজ
Home / আর্ন্তজাতিক / ট্রাম্প আগামী শুক্রবার থেকেই স্বাভাবিক অবস্থা চান

ট্রাম্প আগামী শুক্রবার থেকেই স্বাভাবিক অবস্থা চান

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দেশে ভয়াবহ করোনা সংকট সত্ত্বেও তিনটি পর্যায়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার পরিকল্পনা পেশ করেছেন ৷ এর আওতায় কিছু রাজ্য এক সপ্তাহের মধ্যেই প্রথম পর্যায়ে প্রবেশ করতে পারে৷

নির্বাচনের বছরে অর্থনীতি দুর্বল হয়ে পড়লে ক্ষমতা ধরে রাখা কঠিন হবে৷ এমন আশঙ্কায় করোনা সংকট সত্ত্বেও মরিয়া হয়ে দেশে ‘স্বাভাবিক’ পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে চান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত মানুষের সংখ্যা দ্রুত বেড়ে চললেও তিনি চরম বেকারত্ব নিয়েই বেশি দুশ্চিন্তায় ভুগছেন বলে সমালোচকদের ধারণা৷

করোনা সংকটে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে ট্রাম্প বৃহস্পতিবার নতুন নীতিমালা পেশ করেছেন৷ শাটডাউন শেষ হলে তিনটি পর্যায়ে এই পরিকল্পনা কার্যকর করতে চান তিনি৷ অর্থাৎ, মহামারি মোকাবিলার পাশাপাশি অর্থনৈতিক কার্যকলাপ আবার শুরু করার পথে এগোচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷ তার মতে, অর্থনীতি দ্রুত চাঙ্গা না করলে জনস্বাস্থ্যের উপরেও এর মারাত্মক কুপ্রভাব পড়বে৷ এরই মধ্যে দেশটির দুই কোটিরও বেশি মানুষ বেকার ভাতার জন্য আবেদন করেছেন৷

এর আওতায় আগামী ১৪ দিনে রাজ্যগুলির উদ্দেশ্যে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের মাত্রা কমিয়ে আনার ডাক দিয়েছেন ট্রাম্প৷ তারপর ধাপে ধাপে ব্যবসা-বাণিজ্যের উপর কড়াকড়ি শিথিল করা হবে৷ প্রথম পর্যায়ে পরস্পরের মধ্যে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে পারলে দশ জনের বেশি মানুষের জমায়েতের অনুমতি দেওয়া হবে৷ অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ কমানো, হোম অফিসের মাধ্যমে কাজ বাড়ানো এবং দপ্তরে কর্মীদের সাধারণ মেলামেশার জায়গা বন্ধ রাখা হবে৷ প্রথম পর্যায়ে স্কুল বন্ধ রাখা হলেও কড়া নিয়মের পূর্বশর্তে সিনেমা, রেস্তোরাঁ, স্টেডিয়াম, উপাসনালয় ইত্যাদি খোলা হবে৷ পরিস্থিতি আরো স্বাভাবিক হলে দ্বিতীয় পর্যায়ে স্কুলসহ আরো কিছু স্থাপনা খোলা হবে এবং সমাবেশের নিয়ম আরো শিথিল করা হবে৷ তৃতীয় পর্যায়ে কর্মক্ষেত্রে কোনো বাধা-নিষেধ থাকবে না৷

ট্রাম্প বলেন, একবারে নয়, বরং সতর্কতার সঙ্গে একটি করে পদক্ষেপ নেওয়া হবে৷ সোমবার তিনি প্রেসিডেন্টের বিশেষ ক্ষমতা প্রয়োগ করে রাজ্যগুলিকে চালু অথবা বন্ধ রাখার হুমকি দিলেও এখন সুর নরম করে পরামর্শের পথ নিয়েছেন৷ এভাবে রাজ্যগুলির উপর সিদ্ধান্ত চাপিয়ে নিজেকে দায়মুক্ত করারও চেষ্টা করছেন তিনি৷

নতুন এই নীতিমালার ফলে কিছু রাজ্যের জন্য বর্তমান বিধিনিয়ম কার্যত বাতিল হয়ে যাচ্ছে৷ এপ্রিল মাসের শেষ পর্যন্ত ফেডারেল ভাইরাস মিটিগেশন নিয়ম চালু রাখার কথা ছিল৷ যেসব রাজ্য সেই শর্ত পূরণ করছে, সেগুলি আবার পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার লক্ষ্যে প্রথম পর্যায়ে প্রবেশ করতে পারবে৷ ট্রাম্পের মতে, ২৯টি রাজ্য আগামী শুক্রবারই সেই পর্যায়ে পৌঁছতে পারবে৷ তবে নিয়ম অনুযায়ী রাজ্যগুলির স্বাস্থ্য পরিষেবা অবকাঠামো ব্যাপক হারে পরীক্ষা ও অন্যান্য পদক্ষেপ কার্যকর করতে পারবে কিনা, সেটা এখনো স্পষ্ট নয়৷

তবে ট্রাম্পের এমন অস্পষ্ট পরিকল্পনার বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় উঠছে৷ সংসদের নিম্ন কক্ষের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও ডেমোক্র্যাট দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেন বলেন, ব্যাপক হারে করোনাভাইরাস পরীক্ষার মধ্যেই দেশ পুরোপুরি চালু করার চাবিকাঠি লুকিয়ে রয়েছে৷ অথচ সরকার সেই পথে না গিয়ে ভাসা ভাসা পরিকল্পনা পেশ করছে৷

তবে দলমতনির্বিশেষে বিভিন্ন রাজ্যের গভর্নর তিন পর্যায়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন৷ সূত্র: ডয়চে ভেলে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: