ঢাকা সফরের আমন্ত্রণ লঙ্কান প্রেসিডেন্টকে

30

ঢাকা সফরের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসেকে । সোমবার কলম্বোতে নবনিযুক্ত বাংলাদেশ হাইকমিশনার তারেক মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম পরিচয়পত্র পেশকালে লঙ্কান প্রেসিডেন্টকে ঢাকার তরফে ওই আমন্ত্রণ জানান। বাংলাদেশ মিশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় যে, হাইকমিশনার তারেক প্রেসিডেন্ট রাজাপাকসের কাছে বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন এবং তাদের পক্ষে তাঁকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। শ্রীলঙ্কার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে নেতৃত্ব প্রদানের পাশাপাশি কোভিড-১৯ মহামারিকে কার্যকরভাবে মোকাবিলার জন্য প্রেসিডেন্ট রাজাপাকসেকে সাধুবাদ জানান হাইকমিশনার মিস্টার ইসলাম। বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে বিদ্যমান চমৎকার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে তিনি দুইদেশের মধ্যকার বন্ধনকে আরো জোরদার করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। এজন্য তিনি শ্রীলঙ্কা সরকারের সমর্থন চান। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যে অভূতপূর্ব আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন অর্জন করেছে লঙ্কান প্রেসিডেন্টকে সে বিষয়ে অবহিত করেন এবং কোভিড মোকাবিলায় বাংলাদেশের সাফল্য তুলে ধরেন। তিনি দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য, দ্বিপক্ষীয় মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি (এফটিএ), নৌ-পরিবহন সংযোগ বাড়ানো, কোস্টাল শিপিং চুক্তি স্বাক্ষর, বিনিয়োগ বৃদ্ধি, ওষুধ খাতে সহযোগিতা ইত্যাদি বিষয়েও আলোচনা করেন।

প্রেসিডেন্ট হাইকমিশনারকে তার দায়িত্ব গ্রহণের জন্য অভিনন্দন জানান। তিনি বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীকে তার শুভেচ্ছা জানান এবং বাংলাদেশ সফরে আমন্ত্রণের জন্য তাদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবিলায় শ্রীলঙ্কার অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন। বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে কৃষি ও কৃষিভিত্তিক পণ্য, আঞ্চলিক পর্যটন, বাণিজ্য-বিনিয়োগ, আইসিটি, উচ্চ প্রযুক্তি শিল্প এবং শিক্ষার ক্ষেত্রে সহযোগিতা বাড়ানোর তাগিদ দেন। অনুষ্ঠানে শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীনেশ গুণাওয়ার্দনে, প্রেসিডেন্টের সচিব ড. পি.বি. জয়সুন্দেরা এবং পররাষ্ট্র সচিব অ্যাডমিরাল প্রফেসর জয়নাথ কলম্বাগে উপস্থিত ছিলেন।