দৌড়ঝাঁপ বাংলাদেশ-ভারত কূটনৈতিক

85

মার্চের শেষ সপ্তাহে তিনি ঢাকা সফরে আসতে পারেন।  ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন বাংলাদেশ সফর নিয়ে কূটনৈতিক দৌড়ঝাপ শুরু হয়েছে। এই সফর দু’দিন ২৬ শে মার্চ ও ২৭ শে মার্চ পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। এ সময়ে কি নিয়ে আলোচনা হবে, এজেন্ডায় কি থাকবে তা চূড়ান্ত করা হচ্ছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সফরের আগে সেখানকার স্বরাষ্ট্র সচিব অজয় বাল্লা ঢাকায় আসবেন। তিনি বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দিনের সঙ্গে আলোচনা করবেন। এ ছাড়া বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেনের সঙ্গে ৪ঠা মার্চ বৈঠক করতে ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। ধারণা করা হচ্ছে, এসব সফরে আলোচনার বিষয়বস্তু নিয়ে কথা হতে পারে।

এ খবর দিয়েছে ভারতের অনলাইন এএনআই। এতে আরো বলা হয়, করোনা মহামারি দেখা দেয়ার পর এটাই হবে নরেন্দ্র মোদির প্রথম কোনো বিদেশ সফর। তবে এরই মধ্যে মোদি দ্বিপক্ষীয় এবং বহুপক্ষীয় অনেক ভার্চ্যুয়াল বৈঠকে অংশ নিয়েছেন। রিপোর্টে বলা হয়েছে করোনা ভাইরাসের টিকা সরবরাহের ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দিয়েছে ভারত।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যে রয়েছে সুসম্পর্ক। এ বছর ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কন্টিনজেন্ট। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী বা ৫০ বছর পূর্তি উদযাপনের জন্য উভয় দেশই বিভিন্ন কর্মসূচি আয়োজন করছে।