দ্রুত টিকা প্রদানের সিদ্ধান্ত বিদেশে পড়ুয়াদের

17

সরকার আদালতের নির্দেশনা মতে বিদেশ পড়ুয়াদের দ্রুত টিকা প্রদান এবং সুরক্ষা অ্যাপের রেজিস্ট্রেশনে অগ্রাধিকার দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে । বৃহস্পতিবার এক ভার্চ্যুয়াল বৈঠক থেকে এ সিদ্ধান্ত আসে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে যেতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া এবং সুরক্ষা অ্যাপে তাদের অগ্রাধিকারের বিষয়ে গত ৪ঠা জুলাই পদক্ষেপ জানতে চেয়েছিলেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে জেনে রাষ্ট্রপক্ষকে জানাতে বলা হয়েছিল।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের একক বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষের কাছে এ তথ্য জানতে চান। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, উচ্চ শিক্ষার জন্য বিদেশে যাওয়ার অপেক্ষায় থাকা শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা অ্যাপের মাধ্যমে টিকা দেয়ার ব্যবস্থা করতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ জানিয়েছে। বিদেশগামী এসব শিক্ষার্থীদের টিকাদানের তারিখ যাতে এগিয়ে আনা যায় সে বিষয়টিও উল্লেখ করেছে মন্ত্রণালয়।
টিকা দেয়ার বিষয়টি সুরাহার জন্য গতকালও বিদেশগামী শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকরা মন্ত্রণালয়ে ভিড় করেছিলেন। শিক্ষার্থীদের টিকার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগের বিষয়ে একটি নির্দেশনা জারি হয়েছিল ক’দিন আগে। অবশ্য পরে তা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। কিন্তু ওই নির্দেশনা ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ায় করোনার মধ্যেও পররাষ্ট্র দপ্তরে ভিড় বাড়ছিলো। এ নিয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন গণমাধ্যমকে বলেন, বিদেশগামী শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার ক্ষেত্রে দু’টি বিষয় দেখতে হচ্ছে।

চীনের নির্দেশনায় বলা আছে, যারা সে দেশে পড়তে যাবেন তাদের সিনোফার্মের টিকা নিয়ে যেতে হবে। এ বিষয়ে বাংলাদেশের নীতিগত সম্মতি আছে। আমাদের হাতে চীনের টিকাও রয়েছে। আবার যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা বা ইউরোপসহ পশ্চিমের অনেক দেশই সিনোফার্মের টিকার অনুমোদন দেয়নি। সে সব দেশে যাওয়া শিক্ষার্থীদের ফাইজার ও মর্ডানার টিকা দিতে হবে। বিষয়গুলো উল্লেখ করে বিদেশ যাওয়ার আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেছেন এমন শিক্ষার্থীদের জন্য টিকা দেয়ার ব্যবস্থা করতে স্বাস্থ্যসচিবকে চিঠি পাঠিয়েছি। এক প্রশ্নের জবাবে সচিব জানান, বিদেশ যাওয়ার সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়া শিক্ষার্থীরা যাতে দ্রুত টিকা পান সেটি নিশ্চিত করতে অনুরোধ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ইউরোপ. আমেরিকা, কানাডাসহ পশ্চিমের দেশগুলোতে যাওয়ার সমুদয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করে হাজারো শিক্ষার্থী টিকার অপেক্ষায় রয়েছেন।