Home / স্বাস্থ্য / নারীরা ঘরবন্দি অবস্থায় পুরুষের চেয় বেশি চাপে

নারীরা ঘরবন্দি অবস্থায় পুরুষের চেয় বেশি চাপে

মানসিক চাপ ভয়ংকরভাবে বেড়ে গিয়েছে । করোনাভাইরাস মহামারি আমাদের জীবনকে কিছু কঠোর বাস্তবতার মুখোমুখি করেছে। এমন অবস্থায় আমাদের সামনে একটি কুৎসিত সত্য উপস্থাপিত হয়েছে তা হলো- ঘরবন্দি অবস্থায় । আর দুঃখজনক হলেও সত্য যে পুরুষের চেয়ে অনেক বেশি চাপের সম্মুখীন হতে হচ্ছে নারীদের।

মেহনাজ আকতার (ছদ্মনাম) একটি আইটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। যখন সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে তখন সে বেশ রোমান্টিক হয়ে গিয়েছিল। কারণ সদ্যই তার বিয়ে হয়েছে, চাকরির জন্য স্বামীকে বেশি সময় দিতে পারছিলেন না তিনি। আর তার স্বামীও অফিসের কাজে বাইরেই বেশি সময় কাটাতো। মেহনাজ ভেবেছিলেন, বাসা থেকে অফিসের কাজ করা খুব সুখের অভিজ্ঞতা হবে।

তবে দুর্ভাগ্যক্রমে সেটি মেহনাজের জন্য হয়ে ওঠেনি। তিনি ধারণাই করতে পারেননি এই সময়ে তার জন্য কী আছে। ঘরবন্দি অবস্থায় গৃহকর্মী না আসায় সব কাজ করতে রান্নাসহ ঘরের যাবতীয় কাজ করতে হচ্ছে তাকে। এখন তার দিন শুরু হয় ভোর ছয়টায়। কারণ তাকে সকালের নাস্তা প্রস্তুত করতে হয় এবং সকাল নয়টায় অফিসের কাজ শুরু করার আগে সম্পূর্ণ ঘর পরিস্কার করতে হয়। দুপুর পর্যন্ত তিনি অফিসের কাজ করেন। এরপর তাকে দুপুরের খাবার রান্না করে সবাইকে খাওয়াতে হয়। অনলাইনে অফিসের মিটিং, প্রেজেন্টেশনের মধ্যেই তিনি যতটুকু পারেন খেয়ে নেন। এমন করেই দিন পার করতে হচ্ছে তাকে।

দিনের ঝাক্কিঝামেলা শেষে রাতে যখন ক্লান্ত অবস্থায় মেহনাজ ঘুমাতে যান। তখন তার স্বামী একান্ত সম্পর্কের আহ্বান জানায়। যা তিনি এতদিন পছন্দ করতেন সেটাতেই এখন তিনি কুঁকড়ে যান। এমন অবস্থায় চাপ সহ্য করতে না পেরে শেষ পর্যন্ত তিনি মনোবিদে স্মরণাপন্ন হয়েছেন।

মেহনাজ একা নন। ঘরবন্দি অবস্থায় নারীরা পুরুষদের চেয়ে অনেক বেশি চাপে রয়েছেন। ভারতের ইটাইমস লাইফস্টাইল নামের এক সংস্থার জরিপে ৬১ শতাংশ ভোটদানকারীই জানিয়েছেন যে, ঘরবন্দি অবস্থায় নারীরা অনেব বেশি চাপে রয়েছেন। দেশটির মানসিক স্বাস্থ্য ও আচরণবিজ্ঞান বিভাগের পরিচালক ডাঃ সামির পারিখের মতে, একসঙ্গে ঘরের ও অফিসের কাজ সামলেত হিমশিম খাচ্ছেন বেশিরভাগ নারী। এছাড়া তারা সাধারণ সময়ের তুলনায় অনেক বেশি চাপ অনুভব করছেন। তবে যেসব নারীর সঙ্গী তাদেরকে সহযোগীতা করছেন তাদের বেলায় ভিন্ন অবস্থা দেখা গিয়েছে।

করোনাভাইরাসের কারণে ঘরবন্দি অবস্থায় বেশিরভাগ বাড়িতেই গৃহকর্মীদের বিদায় দেয়া হয়েছে। এমতাবস্থায় সব সামলাতে হচ্ছে নারীকে। এছাড়া সবকিছু বন্ধ হওয়ায় ঘরের ছোট বড় সব সদস্যই বাড়িতে অবস্থান করছেন। তাদের দাবি পূরণ করতে গিয়ে এবং ঘরের সব কাজ সামাল দিতে গিয়ে প্রচণ্ড চাপের মুখে পড়ছেন তারা। এমনকি এটি মানসিক স্বাস্থ্যের ওপরও আঘাত করছে।

সম্প্রতি এক গবেষণায় জানানো হয়েছে, ঘরবন্দি অবস্থায় ৬৭ শতাংশ লোক ঘুমের সমস্যায় ভুগছেন। ঘর ও অফিসের কাজ সামলাতে গিয়ে দৈনিক রুটিন পরিবর্তন হয়ে গিয়েছে। নারীরা ঘর ও অফিসের কাজ সামলাতে গিয়ে মানসিকভাবে হতাশ হয়ে পড়ছেন।

এই অবস্থায় নারীদের চাপ কমাতে ও মানসিক শান্তি দিতে করণীয় হলো- নারীকে অবস্থা বুঝতে হবে এবং একটু বাড়তি চাপ নেয়ার জন্য নিজেকে প্রস্তুত রাখতে হবে। এছাড়া বাড়ির পুরুষ সঙ্গী ও অন্যান্য সদস্যরা তাকে সাধ্যমতো সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। সব কাজ যতটা সম্ভব সবাই মিলে ভাগাভাগি করে নিতে হবে।

চাপ বেশি হয়ে গেলে কারো সাহায্য নেয়া কোনো দুর্বলতা নয়। এছাড়া কঠিন সময়ে আপনার শারীরীক-মানসিক স্বাস্থ্যেরও যত্ন নেয়া অত্যন্ত জরুরি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: