Home / অন্যান্য / সড়ক দুর্ঘটনা / নিহত ২ বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস দুর্ঘটনা

নিহত ২ বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস দুর্ঘটনা

বরযাত্রী আর কিছুক্ষণ পরেই নববধূকে নিয়ে আসবে । আত্মীয়-স্বজনে ভরা বাড়ি। চলছিল আনন্দ উল্লাস। রাতে ফিরবে বরযাত্রী সেই অপেক্ষায় ছিলেন সবাই। কিন্তু সেই আনন্দঘন মূহুর্ত এক নিমিষেই বিষাদে পরিণত হলো। নববধূকে নিয়ে ফেরার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান দু’জন বরযাত্রী। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো ছয়জন।

মঙ্গলবার রাতে ডোমার-দেবীগঞ্জ সড়কের পাগলাবাজার আমতলী এলাকায় ট্রাক্টর ও মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

আহত সকলের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছে পুলিশ।

নিহতরা হলেন, জাহিদ হাসানের স্ত্রী রুনা বেগম (৩৫) ও পানিয়াল রহমানের স্ত্রী সকিনা খাতুন (৫০)। তারা দু’জনেই বর গোলাম রব্বানীর আত্মীয়।  আহতরা হলেন, হামিদা বেগম (৪০), মজিদ ইসলাম (৩৫), জয়িতা আক্তার (১২), জান্নাত আক্তার (১০), লতিফা বেগম (২২)। সবার বাড়ি উপজেলার বোড়াগাড়ি ইউনিয়নের লালার খামার এলাকায়। রুনা বেগম ঘটনাস্থলে নিহত হলেও তার সঙ্গে থাকা ৫ বছরের শিশু সন্তানটি বেঁচে যান।

দুর্ঘটনায় আক্রান্তরা জানান, পার্শ¦বর্তী দেবীগঞ্জ উপজেলার তিস্তারহাট এলাকায় নফর উদ্দিনের ছেলে গোলাম রাব্বানীর বিয়ে শেষে রাতে নববধূ নিয়ে বরযাত্রীরা ৪টি মাইক্রোবাসে ডোমারের বাড়ির উদ্দেশ্যে ফিরছিলো। ফেরার পথে পাগলাবাজার আমতলী এলাকায় একটি ট্রাক্টরের সঙ্গে বরযাত্রীর গাড়ি বহরের একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। মাইক্রোবাসটি দুমড়ে-মুছড়ে পার্শ্ববর্তী খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই রুনা বেগম মারা যান।

দ্রুত এলাকাবাসী ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা সাতজনকে উদ্ধার করে দেবীগঞ্জ স্বাস্থ কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ সময় সখিনা ও হামিদার অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে রাতেই সখিনা বেগম মারা যান। আর হামিদা বেগমকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘাতক ট্রাক্টর চালক পালিয়ে যান। ডোমার ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার ফরহাদ হোসেন জানান, ঘটনাস্থল থেকে আমরা চারজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করি। ঘটনাস্থলেই একজন মারা গেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this:
Skip to toolbar