Home / ফিচার / পথশিশুদের মূলধারায় ফেরাতে প্রয়োজন সম্মিলিত উদ্যোগ

পথশিশুদের মূলধারায় ফেরাতে প্রয়োজন সম্মিলিত উদ্যোগ

সাম্প্রতিক সময়ে কোভিড-১৯ ভাইরাস এর কারনে সারাবিশ্ব একটি সংকটময় মুহুর্ত অতিক্রম করছে। সুবিধাবঞ্চিত সকলেই এই ভাইরাসের নির্মমতার শিকার। বাংলাদেশে ভাইরাস সংক্রমনের হার অন্যান্য দেশের তুলনায় কম হলেও এই সংকটের বাইরে নয়। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে বাংলাদেশ সরকার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশকৃত বিষয়সমূহকে সামনে রেখে বিভিন্নমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে যা বেশির ভাগ মানুষকে কোভিড-১৯ থেকে দূরে রাখতে সাহায্য করবে।

স্ট্রীট চিলড্রেন এক্টিভিস্টস নেটওয়ার্ক – স্ক্যান বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সরকারের কোভিড-১৯ বিষয়ক উদ্যোগ ও পথশশিুদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ ও পর্যালোচনা করেছে এবং দেখা গেছে সরকারের যে উদ্যোগ সেগুলো থেকে ঢাকা শহর দেশব্যাপী পথশিশুরা সরকারের প্রায় সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত। স্ট্রীট চিলড্রেন এক্টিভিস্টস নেটওয়ার্ক –স্ক্যান বাংলাদেশ পথশিশুদের নিয়ে কর্মরত ব্যক্তি ও সংগঠন সমূহের একটি নেটওয়াক।

স্ক্যান বাংলাদেশ মনে করে এসকল শিশুদের সুরক্ষা ও নিরাপদ পরিবেশ তৈরি করে দেয়ার সক্ষমতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন শিশুবান্ধব সরকারের সামর্থ্য আছে। স্ক্যান বাংলাদেশ সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কোভিড-১৯ বা করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষায় সরকারের নিকট নিম্নোক্ত পদক্ষেপ নেয়ার জন্য জোরালো আহ্বান জানিয়েছে।

১.সমাজ সেবা অধিদপ্তর কর্তৃক পথে বসবাসকারী শিশুদের উদ্ধার করে সমাজসেবার অধীন পরিচালিত হোমগুলোতে আশ্রয় নিশ্চিত করা, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীন পথশিশু পুণর্বাসন কর্মসূচীর অধীন পরিচালিত সেন্টার বা উদ্ধারকৃত এলাকায় এনজিও পরিচালিত সেন্টার বা হোমগুলিতে আশ্রয় নিশ্চিত করা;

২.স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক দ্রুত উদ্ধারকৃত এসকল শিশুদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা;

৩.যেখানে শিশুরা থাকবে সেখানে খাদ্য সহ প্রয়োজনীয় সব উপকরণ সরবরাহ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনাও ত্রাণমন্ত্রণালয়কে দায়িত্ব প্রদান ও নিশ্চিত করা;

৪.মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় পরিচালিত মনোসামাজিক কাউন্সেলিং সেবা এসকল শিশুদের জন্য নিশ্চিত করা;

৫.পথশিশুদের নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অসত্য তথ্য প্রচার করছে ও অর্থ লোপাট করছে তাদের চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনা।

৬.প্রয়োজনে সুশীল সমাজ ও সংশ্লিষ্ট সরকারি দপ্তরের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করে সংকটকালীন মনিটরিং নিশ্চিত করা এবং সংকট পরবর্তী এদের পুনর্বাসনের লক্ষে কর্মপরিকল্পনা তৈরি করা।

আন্তর্জাতিক শিশু অধিকার সনদের ২০ নং অনুচ্ছেদের উপধারা (১) এ বলা হয়েছে ‘পারিবারিক পরিবেশ থেকে যে শিশু সাময়িক বা চিরতরে বঞ্চিত বা স্বার্থ রক্ষায় যে সকল শিশুর পারিবারিক পরিবেশ উপযুক্ত নয় সে সকল শিশু রাষ্ট্র থেকে বিশেষ সুরক্ষা ও সহায়তার অধিকারী।‘

সরকারের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে বেসরকারি সংস্থাগুলো সুবিধাবঞ্চিত ও পথশিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠা, তাদের শারীরিক, মানসিক ও নৈতিক বিকাশ, একাডেমিক শিক্ষার ব্যবস্থা, ভরণ-পোষণ এবং ভবিষ্যত জীবনে স্বাবলম্বী করে মূলধারায় ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজন সম্মিলিত উদ্যোগ।

দেশের মোট জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ শিশু এরমধ্যে ১৫ শতাংশ হচ্ছে সুবিধাবঞ্চিত শিশু। বাংলাদেশ শিশু আইন ’১৩ এর ৮৯ অনুচ্ছেদে ১৬টি ক্যাটাগরিতে সুবিধাবঞ্চিত শিশুর কথা বলেছে। বিশ্ব শিশু অধিকার সপ্তাহ ২০১৫ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়কে পথশিশু পুনর্বাসনের বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা প্রদান করেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের শিশুরা কেন রাস্তায় ঘুরবে? একটা শিশুও রাস্তায় ঘুরবে না। একটা শিশুও এভাবে মানবেতর জীবন যাপন করবে না।‘

এ লক্ষ্যে সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ সবাইকে একযোগে পথশিশুদের পুনর্বাসনের জন্য কাজ করার জন্য পরামর্শ দেন। এই নির্দেশনার উপর ভিত্তি করে মহিলা ও শিশু মন্ত্রনালয় ঢাকা উত্তর ও দক্ষিন সিটিতে একটি জরিপের কাজ করে। পরে ২০১৬ সাল থেকে পথশিশু পুনর্বাসনের লক্ষ্যে কার্যক্রম হাতে নেয়।

সুবিধাবঞ্চিত ও পথশিশুদের পুনর্বাসনে সরকারি বেসরকারি সমন্বিত কার্যক্রমের মাধ্যমে তাদের দীর্ঘমেয়াদী পুনর্বাসনের লক্ষ্যে কতিপয় প্রস্তাবনা পেশ করছি:

পথশিশু কারা? তাদের অবস্থা এবং পথশিশুর সংখ্যা:

ইউনিসেফ কর্তৃক পথশিশু বলতে, যে সকল শিশুর জন্য রাস্তা বসবাসের স্থান অথবা জীবিকার উপায় হয়ে গেছে তাদের পথশিশু বলে। ২০০৫ সালে সমাজসেবা অধিদপ্তরের এক গবেষনায় ৪১ শতাংশ শিশুর ঘুমানোর কোন বিছানা নেই; ৪০ শতাংশ প্রতিদিন গোসল করতে পারে না; ৩৫ শতাংশ খোলা জায়গায় পায়খানা করে; ৮৪ শতাংশ শিশুর কোন শীতবস্ত্র নেই; ৫৪ শতাংশ শিশুর অসুস্থতায় দেখার কেউ নেই; ৭৫ শতাংশ শিশু অসুস্থতায় ডাক্তার দেখাতে পারে না; মাদকাসক্তির চিত্র ভয়াবহ, শিশু অধিকার ফোরামের এক প্রতিবেদনে দেখা যায় ৮৫ ভাগ পথশিশু মাদকাসক্ত। ১৯ শতাংশ হেরোইন, ৪৪ শতাংশ শিশু ধূমপানে ২৮ শতাংশ টেবলেট, ৮ শতাংশ ইঞ্জেকশনেআসক্ত; ৮০শতাংশ শিশু কাজ করে জীবন টিকিয়ে রাখতে; ২০ শতাংশ শারিরীকভাবে নির্যাতিত হয়; ৪৬ শতাংশ মেয়ে শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হয়; ১৪.৫ শতাংশ শিশু সার্বিকভাবে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়;

পথশিশুর সংখ্যা নিয়ে বিভিন্ন মহলে মতদ্বৈততা দেখা যায়। ২০০৪ সালে বিআইডিএস জরিপ বলছে ২০২৪ সালে গিয়ে দাড়াবে ১৬ লাখ। বর্তমানে এইসংখ্যা প্রায় ১৩ বলে অনেকে মনে করছেন। প্রকৃতপক্ষে কারা পথশিশু? যারা সার্বক্ষণিকভাবে পথে থাকে, খেলে, ঘুমায়, জীবিকা নির্বাহ করে তারা যদি পথশিশু হয়তাদের সংখ্যা কত হবে?

এ নিয়ে একটি বাস্তবসম্মত জরীপ হওয়া সর্বাগ্রে জরুরী। অবস্থাদৃষ্টে এই স্টাডি অনেক পুরাতন হয়ে গেছে। প্রতিনিয়ত ঝুঁকিপূর্ণ শিশুদের সংখ্যা বাড়ছে এবং নতুন সমস্যা তৈরি হচ্ছে। তাই পথশিশুদের প্রকৃত সংখ্যা বর্তমানে কত এটা না জানলে পথশিশু কার্যক্রমের জন্য বাস্তবভিত্তিক পরিকল্পনা তৈরি করা দূরূহ হবে

পথশিশু সংশ্লিষ্ট তথ্য সহায়ক পুস্তিকা:

পথশিশুদের জন্য সরকারি বেসরকারি কার্যক্রমগুলো কি আছে? কারা কি কাজ করছে সেটা সবার জানা থাকা দরকার। কে কি করছে এবং কিভাবে করছে? এ বিষয়ে একটি সহায়ক তথ্যপুস্তিকা থাকা আবশ্যক। সরকার এবিষয়ে বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়ে সারা দেশব্যাপী যেসব কাজ হচ্ছে তার একটি তথ্যপুস্তিকা তৈরি করতে পারেন। ষ্ট্রীট চিলড্রেন এক্টিভিস্টস্নেটওয়ার্ক সম্প্রতি ২০১৭ সালের জন্য একটি ডিরেক্টরী প্রকাশ করেছে।

কিন্তু এই তথ্য যথেষ্ট নয়। পথশিশু সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো যখন তার নিজস্ব সেবা সম্পন্ন করছে তখন শিশুটি পরবর্তী প্রয়োজনীয় সেবা কোথায় পাবে এসম্পর্কে কোন পূর্বধারণা না থাকায় ফলে আংশিক সেবা নিয়ে শিশুটি আবার পূর্বের জীবনে ফিরে যাচ্ছে। তাই এমন একটি তথ্যপুস্তিকা থাকা আবশ্যক যেখানে সারা দেশে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কোথায় কি হচ্ছে, যোগাযোগ ঠিকানা, ক্যাপাসিটি ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত বিবরন দেয়া থাকবে যাতে এই তথ্যের সহায়তা নিয়ে শিশুদের সহায়তা দিতে সবাই সক্ষম হবে।

শেল্টারহোম ব্যবস্থাপনায় স্ট্যান্ডার্ড কমন গাইডলাইন এবং মনিটরিং ও সমন্বয়:

বাংলাদেশে সুবিধাবঞ্চিত ও পথশিশুদের নিয়ে বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি শেল্টার হোম রয়েছে। কিন্তু এদের অনেকেই কোন নিয়ম মেনে চলে না। শিশু অধিকার বা শিশু সুরক্ষার বিধান মেনে এসব হোম পরিচালিত হওয়া বাঞ্চনীয়। এ সংক্রান্ত একটি মানসম্মত নির্দেশিকা তৈরি করতে পারে। সমাজকল্যান মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও বেসরকারি সংস্থাগুলোকে নিয়ে সবার উপযোগী শিশু হোম পরিচালনার জন্য একটি স্ট্যান্ডার্ড কমন নির্দেশিকা প্রণয়ন করা আবশ্যক। পাশাপাশি নির্দেশিকা অনুসরন করে শেল্টার হোম পরিচালিত হচ্ছে কিনা তা একটি মনিটরিং সেলের মাধ্যমে যাচাই করে দেখার জন্য সমাজসেবা এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের নেতৃত্বে নেটওয়ার্ক প্রতিনিধির সমন্বয়ে গঠন করা যেতে পারে। এ ব্যাপারে একটি সুষ্পষ্ট নীতিমালা থাকবে। প্রতিটি সংস্থা যথায়থভাবে শিশু সুরক্ষা নীতি অনুসরণ করে শিশু যত্ন নিশ্চিত করছে কিনা এটা মনিটরিং সেল কর্তৃক খতিয়ে দেখার ব্যবস্থা থাকবে। মনিটরিং সেল প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়ে উন্নয়নের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের নিকট সুপারিশ করবে।

পথশিশু উৎসমূখ বন্ধেক্যাম্পেইন/ জনসচেতনতা:

পথশিশুর উৎসস্থল সমুহে ব্যাপক প্রচারনা চালানো হবে। জাতীয়ভাবে সচেতনতামূলক সাইকেল র্যালীর আয়োজন করে স্থানীয় প্রশাসন ও স্থানীয় সরকারকে অর্ন্তভূক্ত করে ব্যাপক কার্যক্রম নিতে পারে। প্রতিটি শিশু স্কুল সময়ে রাস্তায় থাকতে পারবে না এ বিষয়ে ব্যাপক জনসচেতনতাসহ বিশেষ প্রণোদনার ব্যবস্থা নিতে হবে। রেল ষ্টেশন, বাস টার্মিনাল, লঞ্চ ঘাটে বিশেষ প্রহরার ব্যবস্থা থাকবে। অভিভাবকবিহীন কোনো শিশুকে পাওয়া গেলে ওখান থেকেই শিশুটিকে উদ্ধার করে কোন শেল্টারে পাঠাতে হবে। পরে কাউন্সিলিং সেবা দিয়ে পরিবারে যোগাযোগ করা হবে। শিশুটি ঝুকিপূর্ণ হলে কোন শেল্টারে পুনর্বাসনের জন্য প্রেরণ করা হবে।

প্রতিষ্ঠান, স্বেচ্ছাসেবী ও কর্মীদের সক্ষমতা বৃদ্ধি:

প্রয়োজনের তুলনায় এখন অনেক বেশি সংস্থা কাজ করছে। কিন্তু ঘাটতি হচ্ছে তাদের অদক্ষতা ও অসচেতনতা। শিশুদের সাথে কিভাবে কাজ করবে, কাজ করার জন্য বিশেষ দক্ষতা, শিশু হোম পরিচালনার জন্য আবশ্যকীয় বিষয়সহ শিশু অধিকার ও সুরক্ষা সম্পর্কে জানা প্রয়োজন। অধিকাংশ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠণগুলো এসব না বুঝে কাজ শুরু করে আর জড়িয়ে পড়ে নানান জটিলতায়। সংগঠনগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে প্রকল্প প্রস্তাবনাসহ বাজেট প্রনয়ন, শিশু বান্ধব কাজের পরিবেশ তৈরি, কেস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম উন্নয়ন, পিয়ার এডুকেটর প্রশিক্ষণ, শিশু ডাটাবেইজ তৈরি, কাউন্সেলিং ও শিশু যত্ন প্রশিক্ষণ সহায়তা দিতে পারে।

মনোসামাজিকসেবা:

সুবিধাবঞ্চিত ও পথশিুরা নানা প্রতিকূলতার মাঝে বেড়ে উঠে। সাধারনত: পথশিশুদের আচরণ- অসত্য বলা, অতিমাত্রা আবেগপ্রবণ, নিজ প্রয়োজনে অন্যকে প্রভাবিত করা, অপরাধ করতে কুন্ঠাবোধ না করা, কাউকে সহজে বিশ্বাস করে না, ধ্বংসাত্মক কাজে আগ্রহ, নেতিবাচক আচরন, খোলামেলা স্বাধীন জীবনে অভ্যস্ত, সহজে কাউকে মান্য করে না। এদের মানসিকতার ইতিবাচক পরিবর্তনে মনোসামাজিক সহায়তা অত্যন্ত জরুরী। সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করে তাদের কাউন্সেলিং বিচক্ষণতার সাথে সম্পন্ন করা দরকার। মনোসামাজিক বিশেষজ্ঞ সমন্বয়ে একটি মনোসামাজিক সহায়ক সেল গঠণ করে সেবা নিশ্চিত করা যায়। একইভাবে হোমে অবস্থানরত জটিল শিশু রেফারাল কেস নিয়ে কাজ করবে।

প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থান:

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য বিশেষ আনন্দময় শিক্ষাদান পদ্ধতি নিশ্চিত করা আবশ্যক। বড় শিশুদের জন্য অনানুষ্ঠানিক স্বল্পমেয়াদী শিক্ষা চালু করে এই শিশুদের জন্য সময়োপযোগী বাস্তবমূখী বৃত্তিমূলক কারিগরি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণের পর তাদের জন্য কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। কিংবা স্বল্প সূদে ব্যাংক ঋনের মাধ্যমে উদ্যোক্তা হিসেবে তাদেরকে গড়ে উঠতে সহায়তা করতে পারে। শিশুদেরকে শেল্টার হোম ভিত্তিক হাতে কলমে কৃষিকাজ, মৎসচাষ, পশুপালন বিষয়ে প্রশিক্ষন দিয়ে বাস্তব জীবনের জন্য প্রস্তুত করা যেতে পারে।

মাদকাসক্ত চিকিৎসা:

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের অধিকাংশ কোনো না কোনোভাবে মাদকের সাথে পরিচিত হয়ে পড়ে। এইসকল শিশুরা মাদকাসক্তির কারণে সুন্দর ভবিষ্যৎ বিসর্জন দেয়। তাই এই শিশুদের মাদকাসক্তি চিকিৎসার জন্য প্রতিটি সেবা কেন্দ্রে বিনামূল্যে চিকিৎসার ব্যবস্থা থাকবে। শিশু হোমে প্রেরণের পূর্বেই তাদের মাদকাসক্তি চিকিৎসা নিশ্চিত করা আবশ্যক।

পরিচয়/ ঠিকানা/জন্ম নিবন্ধন:

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের পরিচয় ও ঠিকানা অনেক ক্ষেত্রে পাওয়া যায় না। অনেক সময় শিশুদের পিতামাতার নাম বলতে পারে না। সেক্ষেত্রে প্রতিটি শিশুর জন্ম নিবন্ধন জটিলতার কারণে সম্ভব হয় না। ফলে এইসব শিশু ভবিষ্যৎ নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়। ছোট পরিত্যক্ত শিশুদেরকে কোন পরিবারের তত্ত্বাবধানে দেয়াটা আইনী জটিলতার মধ্যে পড়ে। তাই জন্মনিবন্ধন, শিশুর অভিভাবকত্ব সংক্রান্ত বিষয়গুলো নিয়ে বিশেষজ্ঞ মতামত নিয়ে আইনী বাধাগুলো অপসারন করা খুবই অত্যাবশ্যক।

শিশুপ্রতি (টাকা) ব্যয়:

শিশুপ্রতি ব্যয় সংস্থাগুলো তার নিজস্ব নিয়মে এই ব্যয় নির্ধারিত হয়। সার্বিক বাজার ব্যবস্থা বিবেচনা করে শিশুপ্রতি ব্যয় মানসম্মত, সময়োপযোগী ও অভিন্ন হওয়া জরুরি। শিশুদের পূনর্বাসনে একই ব্যয় নীতি অনুসরন করা দরকার। খাবারের মেন্যু, শিক্ষার উপকরণ, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, স্বাস্থ্য সেবা, পোশাকপরিচ্ছেদ, আবাসন ফ্যাসিলিটিজ, বিছানাপত্র, টয়লেট সুবিধাদি একই মানদন্ড বজায় রেখে ব্যয় নীতিমালা করা দরকার।

শিশুরা হচ্ছে জাতির ভবিষ্যৎ। দেশের মোট জনসংখ্যার ২৫ ভাগ হচ্ছে শিশু। এদের বড় অংশ আবার সুবিধাবঞ্চিত। পরিপূর্ণ শিশু বিকাশ ও শিশু উন্নয়ন ব্যাহত হলে জাতি মেধাশূন্য নেতৃত্ব পাবে। থেমে যাবে জাতির অগ্রগতি। তাই সকল বিষয়ে শিশুর স্বার্থ হবে সর্বোত্তম। দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা একটি পৃথক শিশু অধিদপ্তর। যারা শিশুদের স্বার্থে দেশব্যাপী কার্যক্রম পরিকল্পনা, বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ, মূল্যায়ণ ও সমন্বয় করে থাকবে।

পরিশেষে বলতে চাই, সকল সুবিধাবঞ্চিত ও পথশিশুর কল্যাণে প্রয়োজন সরকারি বেসরকারি সম্মিলিত উদ্যোগ, সক্রিয় অংশগ্রহণ ও বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা। তবেই বাংলাদেশ একদিন পথশিশু মুক্ত হয়ে বিশ্বব্যাপী রোল মডেল হিসেবে সুখ্যাতি অর্জনে সফল হবে।

লেখক: সহকারী পরিচালক, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন এবং সভাপতি, স্ট্রিট চিলড্রেন অ্যাক্টিভিস্টস্ নেটওয়ার্ক-স্ক্যান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: