পুলিশ-সাংবাদিকসহ আহত শতাধিক পাথরঘাটায় নির্বাচনী সহিংসতায়

22

নৌকার প্রার্থী আনোয়ার আকন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান সোহেলের সমর্থকদের সংঘর্ষে অন্তত ২০ পুলিশ সদস্য ও দুজন সাংবাদিকসহ শতাধিক ব্যক্তি হয়েছেন বরগুনার পাথরঘাটা পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে চারটার দিকে পাথরঘাটা থানার সামনে এ ঘটনা ঘটে।

সহকারী পুলিশ সুপার (পাথরঘাটা সার্কেল) মো. তোফায়েল আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সংঘর্ষের সময় কয়েকটি মোটরসাইকেলও ভাঙচুর করা হয়।

আহতরা হলেন, পাথরঘাটা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহাবুদ্দিন, পরিদর্শক তদন্ত সাঈদ আহমেদ, পাথরঘাটা উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ইমাম হোসেন নাহিদ ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদ রাকিব বিন ত্বোহা। অন্য আহতদের নাম এখনো জানা যায়নি।

জানা গেছে, পুলিশ পাহাড়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল তার সমর্থকদের নিয়ে পাথরঘাটা পৌর শহরে মিছিল নিয়ে বের করলে নৌকার সমর্থকরা বাধা দেন। পরে নৌকা সমর্থক ও স্বতন্ত্র সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলে। এর কিছুক্ষণ পরে নারিকেল মার্কার মিছিল নিয়ে তালতলা একলা থেকে পাঁচ শতাধিক নারী-পুরুষ দেশীয় অস্ত্র রামদা, রড, জিআর পাইপ ও লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশ ও সাংবাদিকদের ওপর হামলা করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৫০ রাউন্ড ফাঁকাগুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে মিছিলকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

পাথরঘাটা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক আবুল ফাতাহ জানান, ওসি শাহাবুদ্দিনের অবস্থা গুরুতর। তাকে অবজারভেশনে রাখা হয়েছে। প্রয়োজন হলে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হবে।

সহকারী পুলিশ সুপার (পাথরঘাটা সার্কেল) মো. তোফায়েল আহমেদ সরকার ঢাকাটাইমসকে জানান, দুজন সাংবাদিক ও প্রায় ২০জন পুলিশসহ শতাধিক আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে টিয়ারেশেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। পৌরশহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।