Home / খবর / বেক্সিমকো ফার্মা বিএসএমএমইউকে আইসোলেশন ক্যানোপি দিলো

বেক্সিমকো ফার্মা বিএসএমএমইউকে আইসোলেশন ক্যানোপি দিলো

দেশের শীর্ষস্থানীয় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো ফার্মা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) স্বাস্থ্যকর্মীদের নেগেটিভ প্রেসার আইসলেশন ক্যানোপি দিয়েছে । হাসপাতালের করোনা রোগীদের চিকিৎসাসেবায় নিয়োজিত স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের সুরক্ষায় সম্প্রতি এগুলো দেয়া হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিকেল ফিজিক্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অধ্যাপক ড. খোন্দকার সিদ্দিক-ই-রব্বানীর নেতৃত্বে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের একটি গবেষণা দল দেশে এই প্রথম আইসোলেশন ক্যানোপি তৈরি করেছেন। বিএসএমএমইউ’র অ্যানেশথেসিয়া, অ্যানালজেসিয়া ও নিবিড় পরিচর্যা মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক একেএম আখতারুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি দল ক্যানোপির ক্লিনিক্যাল পর্যায়ে কাজ করেছেন। এ ছাড়া এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয় ও অলাভজনক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বাইবিট লিমিটেডের ইঞ্জিনিয়াররাও এই প্রকল্পের সংঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

অধ্যাপক রব্বানী বলেন, কোভিড-১৯ অত্যন্ত সংক্রামক প্রবণ ভাইরাস। ফলে হাসপাতালে থাকা অন্যান্য রোগী, চিকিৎসক ও নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকির মধ্যে থাকেন। দেশীয়ভাবে উৎপাদিত নেগেটিভ প্রেসার আইসোলেশন ক্যানোপি রোগীদের বিশেষ করে হাসপাতালের আইসিইউতে যারা আছেন তাদের সংক্রমণে ঝুঁকি কমাতে কাজ করবে।

এ ছাড়া ক্যানোপির নেগেটিভ প্রেসারের মাধ্যমে তৈরি পরিবেশ অন্যান্য রোগীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করবে।

এই ক্যানোপিতে একটি অতিবেগুনী রশ্মির (ইউভিসি) চেম্বার ব্যবহার করা হয়েছে, যা হেপা ফিল্টারের মাধ্যমে অণুজীব ও ভাইরাস ধ্বংস করে বাতাসকে আগের মতো সংশ্লেষিত ও পরিষ্কার করে। স্থানীয়ভাবে তৈরি এই ক্যানোপিটি বিদেশে তৈরি অনুরূপ ডিভাইসের চেয়ে অধিকতর কার্যকরী ও সাশ্রয়ী।

বিএসএমএমইউ’র উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া ও ঢাবির উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান এই প্রকল্পে উৎসাহ এবং সহযোগিতা দিয়েছেন এবং এই মহামারিতে গবেষকরা যে প্রচেষ্টা চালিয়েছেন তারও প্রশংসা করেছেন। এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়াত উপাচর্য অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীও এই প্রকল্পটি নিয়ে বিশেষ আগ্রহী ছিলেন।

বেক্সিমকো ফার্মার ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান এমপি বলেন, হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসা করার সময় চিকিৎসক ও নার্সসহ সকল স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকির মধ্যে পড়ছেন। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের ক্ষেত্রে গবেষকদের এই উদ্যোগের অংশ হতে পেরে আমরা গর্বিত।

এই গবেষণা প্রকল্পটিতে বেক্সিমকো ফার্মা ও সুইডেনের আপ্পসালা বিশ্ববিদ্যালয় অর্থায়ন করেছে। গত জুলাই মাসে আইসোলেশন ক্যানোপির প্রথম প্রোটোটাইপ বিএসএমএমইউতে প্রর্দশন করা হয়েছিল। বিএসএমএমইউ-এর এই আইসোলেশন ক্যানোপিগুলো তৈরিতে বেক্সিমকো ফার্মা সকল ধরনের আর্থিক সহায়তা দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: