Home / আর্ন্তজাতিক / ভাইরাস দীর্ঘদিন থাকবে: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

ভাইরাস দীর্ঘদিন থাকবে: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউিএইচও) মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের আরও অনেকদিন থাকবে বলে বিশ্ববাসীকে সতর্ক করেছে। এতদিন যেসব দেশে করোনার প্রভাব কম ছিল সেসব দেশেও এখন প্রতিনিয়ত আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় সংস্থাটি সতর্ক করে বলেছে, এ ভাইরাস মোকাবিলায় পৃথিবীর বহু দেশ এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

সংস্থাটির প্রধান টেড্রোস আডানোম গেব্রিয়াসিস এ সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছেন বলে জানিয়েছে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি।

এএফপি জানায়, বুধবার জেনেভা থেকে করোনাভাইরাস নিয়ে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে যোগ দেন টেড্রোস আডানোম গেব্রিয়াসিস।

এ সময় গেব্রিয়াসিস সবাইকে সতর্ক করে বলেন, কয়েকটি দেশ করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করা গেছে ভাবলেও সেখানে নতুন করে ভাইরাসটির বিস্তার ঘটেছে। বহু দেশ এখনও তাদের মহামারির প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। কোনও ভুল করা চলবে না। আমাদের দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হবে। এই ভাইরাসটি দীর্ঘ দিন আমাদের সঙ্গে থাকবে।’

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ২৬ লাখ ছাড়িয়েছে। ওয়ার্ল্ডওমেটারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৬ লাখ ৬৪হাজার ৬৩০ জন। এ পর্যন্ত বিশ্বের ১৮৫টি দেশ ও অঞ্চল আক্রান্ত হয়েছে। এরমধ্যে এক লাখ ৮৪ হাজার ২২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং সুস্থ হয়েছেন ৭ লাখ ২২ হাজার ১৪৪ জন।

এমন অবস্থায় সবাইকে সতর্ক করে টেড্রোস আডানোম গেব্রিয়াসিস বলেছেন, কয়েকটি দেশ করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করা গেছে ভাবলেও সেখানে নতুন করে ভাইরাসটির বিস্তার ঘটেছে। আফ্রিকা ও আমেরিকা অঞ্চলের কয়েকটি দেশে ভাইরাসটির সমস্যা বাড়ছে বলে সতর্ক করেন তিনি।

গত ৩০ জানুয়ারি ভালো সময়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা স্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে জানিয়ে ডব্লিউএইচও প্রধান বলেন, এর মাধ্যমে দেশগুলো প্রস্তুতি ও পরিকল্পনার জন্য যথেষ্ট সময় পেয়েছে। পশ্চিম ইউরোপের বেশিরভাগ মহামারি এখন স্থিতিশীল রয়েছে নয়তো কমে আসছে বলে জানান তিনি।

গ্রেব্রিয়াসিস বলেন, ‘সংখ্যা কম হলেও আমরা আফ্রিকা, দক্ষিণ আমেরিকা ও পূর্ব ইউরোপে ভীতিকর ঊর্ধ্বমূখী প্রবণতা দেখতে পাচ্ছি।’ তিনি বলেন, ‘বহু দেশ এখনও তাদের মহামারির প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। এছাড়া মহামারিতে শুরুর দিকে আক্রান্ত হওয়া অনেক দেশেই এখন আবার নতুন করে সংক্রমণ বাড়ছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে প্রথম ভাইরাসটির সংক্রমণ দেখা দেয়। ভাইরাসটি মোকাবিলায় যথেষ্ট দ্রুত ডব্লিউএইচও সাড়া দিয়েছে কিনা সেই সমালোচনারও জবাব দেন টেড্রোস আডানোম গেব্রিয়াসিস। তিনি বলেন, ‘পেছনে ফিরে তাকালে আমার মনে হয় আমরা সঠিক সময়েই স্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করি। ভাইরাস মোকাবিলায় যথেষ্ট সময় পেয়েছে বিশ্ব।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: