ভারতের ভ্যাকসিন ঢাকার পথে

6

করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম চালান ভারত থেকে বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে । বৃহস্পতিবার ভোরে মুম্বাইয়ের ছত্রপতি শিবাজি মহারাজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায় সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়ার ‘কেভিশিল্ড’৷ পরে সকাল ৮টায় বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা দেয় ভ্যাকসিন বহনকারী উড়োজাহাজ। খবর জি নিউজের।

এগুলো পরিবহনের দায়িত্ব পেয়েছে ভারতীয় বিমান সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়া।

এর আগে স্বাস্থ্যসেবা সচিব আবদুল মান্নান সোমবার রাতে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার ২০ লাখ ডোজ প্রথম চালানে আসতে পারে।

ওইদিন দুপুরে এই টিকা পাওয়ার খবর দিয়েছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তবে বিস্তারিত জানাননি তিনি। তিনি বলেছিলেন, ভারত থেকে উপহার হিসেবে আরও কিছু টিকা আসবে। এই উপহার হিসেবে কত টিকা আসছে সেই সংখ্যাটা এখনই বলা যাচ্ছে না। তবে সংখ্যাটি ভালোই।

বাংলাদেশ সরকারিভাবে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার তিন কোটি ডোজ কিনছে, যার প্রথম চালান ২৫ জানুয়ারির মধ্যে দেশে পৌঁছাবে বলে আশা করছে সরকার।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, সরকারের কেনা টিকার আগে উপহার হিসেবে পাওয়া টিকা ভারত থেকে আসবে।

অন্যদিকে বুধবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন জানান, ভারতের উপহার করোনাভাইরাসের ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন বৃহস্পতিবার দুপুরে দেশে আসবে। ভারত ছাড়াও চীন ও রাশিয়া বাংলাদেশকে ভ্যাকসিন দিতে চায় বলেও জানান মন্ত্রী।

বুধবার ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমিতে কন্ট্রাক্ট ফার্মিংয়ের ওপরে একটি অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মন্ত্রী। তখন মন্ত্রী উপহারের ২০ লাখ ডোজ ও বেক্সিমকোর ১৫ লাখ ডোজসহ ৩৫ লাখ ডোজ টিকা আসার তথ্য দিয়েছিলেন। পরে রাতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার শুধু ভারতের উপহার দেয়া ২০ লাখ ডোজ টিকা আসছে। বেলা ১১টার দিকে টিকা বিমানবন্দরে আসবে। পরে সেগুলো রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় দুপুর ১টার পর পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করবেন ভারতের হাই কমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী।

করোনাভাইরাস মহামারির শুরু থেকে বিশ্বের সব দেশ ও অঞ্চলের করোনা সংক্রমণের হালনাগাদ তথ্য সংরক্ষণ করছে ওয়ার্ল্ডোমিটারস নামের একটি ওয়েবসাইট। তাদের সর্বশেষ তথ্য বলছে, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৯ কোটি ৭৩ লাখ ৫ হাজার ৩৫৬ জন। মোট মারা গেছেন ২০ লাখ ৮৩ হাজার ২০৩ জন।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী বুধবার বিকাল পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাসে মোট সাত হাজার ৯৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে।