Home / খবর / ‘ভালো মানুষ হওয়া ভালো চিকিৎসক হও য়ার প্রধান শর্ত ’

‘ভালো মানুষ হওয়া ভালো চিকিৎসক হও য়ার প্রধান শর্ত ’

বাংলাদেশ সফররত ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং ভালো চিকিৎসক হতে হলে ভালো মানুষ হওয়া প্রধান শর্ত বলে মন্তব্য করেছেন । বলেন, ‘একজন ভালো চিকিৎসক হওয়ার প্রধান শর্তই হলো ভালো মানুষ হতে হবে। কখনও কোনও অবস্থাতেই কোনও রোগীকে অবহেলা করা যাবে না।’

রবিবার দুপুরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে এসে এক অনুষ্ঠানে নিজের শিক্ষাজীবনের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে একথা বলেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজেই চিকিৎসাবিদ্যায় পড়াশুনা করেছিলেন লোটে শেরিং। এরপর ঢাকার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে সার্জারিতে স্নাতকোত্তর করেন তিনি।

নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসে উদ্বেলিত লোটে শেরিং বলেন, ‘ডাক্তারি পেশা আর দশটা পেশার মতো নয়। তাই চিকিৎসকদের সবসময়ই সচেতন থাকতে হয়।’

‘আমি রাজনীতিতে এসেছি আমার পেশাকে ছেড়ে নয়। ২০১৩ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত আমি চাকরি না করে, বিদেশে না গিয়ে ভুটানের মানুষকে নিয়ে ভেবেছি। তাদেরকে নিয়ে কাজ করেছি। আজ আমি সেই দেশের প্রধানমন্ত্রী।’

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের একজন সাবেক ছাত্র হিসেবে একটি দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে দীর্ঘদিন পর নিজ শিক্ষায়তনে আসতে পারার কথা বলতে গিয়ে স্মৃতিকাতর হয়ে পড়েন লোটে শেরিং।

বক্তব্যের একপর্যায়ে ছাত্রাবস্থায় বিভিন্ন সময়ের ঘটনা নিয়ে সহপাঠীদের অনেকের নাম উল্লেখ করে ডা. লোটে শেরিং আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।

ছাত্রজীবনের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘১৯৯১ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত আমি ও আমার সহপাঠী বর্তমানে ভুটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী টান্ডি দরজিসহ ময়মনসিংহ শহরের বাঘমারা মেডিকেল কলেজ ছাত্রাবাসে ২০ নম্বর কক্ষে থেকেছি।’

‘এখনো একসাথে আমরা রাজনীতি করছি। এ র্দীঘ সময়ে আমাদের মাঝে কোনও দিন কোনও মনোমালিন্য হয়নি। আজকে তার কারনেই আমি প্রধানমন্ত্রী। তিনিই আমাকে প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছেন।’

যতক্ষণ ডিউটি থাকবে, ততক্ষণ চিকিৎসকদের গুরুত্বের সাথে দায়িত্ব পালনের ওপর গুরুত্ব দেন চিকিৎসাপেশা থেকে রাজনীতিতে যোগ দিয়ে ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়া শেরিং।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ভুটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী টান্ডি দরজি, স্বাস্থ্যমন্ত্রী লায়োনপু দিহেন ওয়াংমু, প্রধানমন্ত্রীর সহর্ধমিনী উগেন ডেমা, ত্রান ও দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, স্বাস্থ্যসচিব জি এম সালেহ উদ্দিন, জেলা প্রশাসক সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস, পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. লক্ষ্মী নারায়ন মজুমদারসহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বেলা ১১টা নাগাদ হেলিকপ্টারে ঢাকা থেকে তিনি স্বস্ত্রীক ময়মনসিংহে পৌঁছান। অনুষ্ঠান শেষে লোটে শেরিং হাসপাতালের জেনারেল সার্জারি বিভাগ পরিদর্শন করেন। এরপর কলেজের ২৮ ব্যাচের নিজের বন্ধুদের সঙ্গে কিছুক্ষণ সময় কাটান তিনি।

চারদিনের সফরে গত শুক্রবার বাংলাদেশ সফরে আসেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী। তার সফরকালে শনিবার বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে পাঁচটি সমঝোতা স্মারকও হয়েছে। সোমবার তিনি দেশে ফিরে যাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar