Home / রাজনীতি / ‘মানুষ মারা যাচ্ছে হাসপাতালে ভর্তি হতে না পেরে ’

‘মানুষ মারা যাচ্ছে হাসপাতালে ভর্তি হতে না পেরে ’

যতই চেষ্টা করেন করোনা থেকে বাচতে পারবেন না নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না সরকারকে উদ্দেশে করে বলেছেন, । প্রথমে সরকারি দলের নেতারা বলেছিলেন, তাদের নেত্রী করোনার চাইতে শক্তিশালী। এখন খোদ তাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনা যে শক্তিশালী তা বুঝতে পেরেছেন। আজ শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নসরুল হামিদ মিলনায়তনে ‘রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মের উদ্যোগে জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ করোনা আক্রান্তদের রোগমুক্তি কামনা ও চিকিৎসা পেয়ে, না পেয়ে এই মহামারিতে যারা মারা গেছেন তাদের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল এবং করোনা উত্তরণে নাগরিক ভাবনা ও আমাদের ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মান্না বলেন, করোনা কবে যাবে তা কেউ বলতে পারছে না। খোদ বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থাই বলতে পারছে না। অথচ সরকারের কাছে এর গুরুত্ব নেই। সরকার লকডাউন তুলে নিয়েছে।

সরকারের মনোভাব এমন যে, করোনায় মারা যাক মানুষ, তবুও দুর্ভিক্ষ না হোক। লোকজন আক্রান্ত হয়ে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতলে ঘুরছে। ভর্তি হতে না পেরে মারা যাচ্ছে। তবে সরকারের ঘনিষ্ঠ যারা তারা দশ মিনিটে টেস্ট করতে পারছেন।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, সংসদ সদস্য যারা আছেন তাদেরকে নিজ এলাকায় চিকিৎসা নেয়ার নির্দেশ দিতে হবে। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের নিজ নিজ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা নিতে হবে। এভাবে নিয়ম করলে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নতি হবে। তিনি বলেন, শিকদার গ্রুপ, সংসদ সদস্য পাপুলসহ বড় বড় দুর্নীতিবাজদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে করোনা ফান্ড তৈরী করতে হবে।

এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বলেন, আমেরিকায় প্রতিবাদ করা যায়। কিন্তু দেশে অন্যায়ের প্রতিবাদ করলে তার লাশ কোথায় পড়ে থাকবে তা কেউ জানে না। আজকে মানুষ এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটছে ভর্তি হতে পারছে না। কেউ ভর্তি হতে পারলেও অক্সিজেন পাচ্ছেন না।

ডাকসু ভিপি নুরুল ইসলাম নুরু বলেন, দেশে আজকে সমস্যা স্বাস্থ্যখাতের না, সব জায়গায়। তেলবাজ, চাটুকারদের গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় বসানোর কারণে কোন কাজ হচ্ছে না। তিনি বলেন, আমি দেড় বছর ধরে পাসপোর্ট পাচ্ছি না। দেশে কোনো বিচার নাই। বিচার মানুষ পাবে কি করে, কারণ প্রধান বিচারপতি নিজেই অবিচারের শিকার হচ্ছেন।

জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে সভায় ইন্টারনেটে যুক্ত হন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ নোমান, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক আসিফ নজরুল, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: