মুক্তি পেলেন বিল কসবি যৌন নির্যাতনের অভিযোগে জেল থেকে

32

যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় কমেডিয়ান বিল কসবি (৮৩) যৌন নির্যাতনের অভিযোগের দায় থেকে মুক্তি পেলেন । এর আগে যে রায় দেয়া হয়েছিল সেই রায় উল্টে দিয়েছে পেনসিলভেনিয়ার সুপ্রিম কোর্ট। এর কয়েক ঘন্টা পরেই জেল থেকে বেরিয়ে আসেন কসবি। বিচারক বলেছেন, প্রকিসিউশন বিচার প্রক্রিয়া লঙ্ঘন করেছে। তিনি স্বীকার করেছেন, এর মাধ্যমে যে রায় দেয়া হয়েছে তা স্বাভাবিক নয়। কিন্তু ততক্ষণে ফিলাডেলফিয়ার একটি জেলে তিন থেকে ১০ বছরের সাজার মধ্যে কমপক্ষে দুই বছর ভোগ করে ফেলেছেন বিল কসবি। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।

সাবেক বাস্কেটবল খেলোয়াড় মিস অ্যান্ডে কনস্ট্যান্ডের ওপর মাদক প্রয়োগ ও তাকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে বিল কসবিকে অভিযুক্ত করা হয় ২০১৮ সালে।
১৯৮০র দশকের জনপ্রিয় টিভি সিরিজ ‘দ্য কসবি শো’তে অভিনয়ের কারণে তিনি সবচেয়ে খ্যাতি অর্জন করেন। একসময় তিনি ‘আমেরিকাস ড্যাড’ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। বিল কসবির বিরুদ্ধে কয়েক ডজন নারী যৌন নির্যাতনের অভিযোগ করেছিলেন। কিন্তু শুধু মিসেস কনস্ট্যান্ডের অভিযোগে তাকে অভিযুক্ত করে শাস্তি দেয়া হয়। তাকে ২০১৮ সালে অভিযুক্ত করে ওই শাস্তি দেয়া হয়। একে ওই সময় যৌন নির্যাতন বিরোধী হ্যাসট্যাগ মি টু আন্দোলনের এক মাইলফলক হিসেবে দেখা হয়।

বুধবার পেনসিলভেনিয়ার সর্বোচ্চ আদালত রায় দিয়ে বলেছে, এর আগে যে প্রক্রিয়ায় বিচার হয়েছে তাতে নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়েছে। কারণ, বিল কসবির আইনজীবীরা এর আগের রাজ্য প্রসিকিউটরের সঙ্গে একটি চুক্তিতে গিয়েছিলেন। তাতে বলা হয়েছিল, বিল কসবির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হবে না। কিন্তু সেই নিয়ম মানা হয়নি।

রায়ের পর জেল থেকে বেরিয়ে বিল কসবি তার বাড়ি ফিরে যান। এ সময় তাকে বেশ ভঙ্গুর স্বাস্থ্যের দেখাচ্ছিল। তিনি হাঁটছিলেন ধীরে ধীরে। বাড়ির বাইরে অপেক্ষায় ছিলেন বিপুল সংখ্যক সাংবাদিক। কিন্তু তাদেরকে তিনি কিছুই বলেননি। পক্ষান্তরে তার আইনজীবী টিম এবং মুখপাত্র অ্যান্ড্রু ওইয়াটকে প্রশ্নের উত্তর দেয়ার দায়িত্ব দেন। এরপর অ্যান্ড্রু ওইয়াট বলেন, এই প্রচণ্ড গরমের সময় আমাদের কাছে এই রায়টিও অনেক গরমের। বিল কসবি সব সময় তার সেলিব্রেটি ইমেজ এবং নাম ব্যবহার করে নারীদের উপরে তুলে ধরেছেন। তিনি প্রশ্ন রাখেন, যে ব্যক্তির বিরুদ্ধে প্রতিদিন এফবিআই নজর রাখে, তিনি কিভাবে একজন নারীকে ধর্ষণ করতে পারেন এবং তাকে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যেতে পারেন, বিশেষ করে একজন কৃষ্ণাঙ্গ মানুষ?