যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সুসম্পর্ক গড়ার আশায় চীন ‘মানুষ অনেক ভুগেছে’, বাইডেনের নেতৃত্বে

7

চীনের বিরুদ্ধে একের পর এক বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা দিয়ে গেছেন ট্রাম্প।যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের চার বছরের ক্ষমতার মেয়াদে চীনের সাথে দেশটির সম্পর্ক তলানীতে গিয়ে ঠেকেছিল। চীনও পাল্টা নিষেধাজ্ঞা দিয়ে গেছে। নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ক্ষমতা গ্রহণের পর রাখঢাক না রেখেই যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সুসম্পর্ক গড়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছে চীন। শুক্রবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনিং এর করা তিনটি টুইট যার প্রমাণ।

শুক্রবার প্রথম টুইটে চুনিং লেখেনঃ

“যুক্তরাষ্ট্রের মিডিয়ায় যেমনটি বলা হয়েছে, ‘যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি নতুন দিন’, আমরাও চীন-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কের জন্য একই জিনিস কামনা করি। গত চার বছরে আমরা কয়েকজন সুনির্দিষ্ট চীন বিরোধী রাজনীতিবিদদের দ্বারা তৈরি অনেক মিথ্যা, বিদ্বেষ আর বিভাজন দেখেছি। দুই দেশের মানুষ অনেক ভুগেছে। আশা করি আমাদের সম্পর্ক আবার সঠিক পথে ফিরে আসবে।”

চুনিং এর দ্বিতীয় টুইটঃ

“প্রেসিডেন্ট বাইডেন যেমন বলেছেন, গণতন্ত্র ভিন্নমতকে স্বাগত জানায় এবং মতবিরোধ যেনো বিভ্রান্তির দিকে চলে না যায়।

বিভিন্ন সামাজিক ব্যবস্থা, সাংস্কৃতিক পটভূমি এবং মতাদর্শের দেশগুলোর উচিত সংলাপ ও সহযোগিতার চর্চা করা।”

 

চুনিং এর করা তৃতীয় টুইটঃ

 

“প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের ‘নিরাময়ের ও পুনরুদ্ধারের জন্য করার অনেক কিছুই আছে’।  চীন-যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের মাঝেও অনেক বাধা আর কাটা রয়েছে যেগুলো পরিষ্কার পুনর্নির্মাণ ও সংস্কারের অপেক্ষায়। আমাদের কেবল সাহস ও বুদ্ধি দেখাতে হবে, একে অপরকে শুনতে হবে, একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে হবে।”

 

উল্লেখ্য, বাইডেনের অভিষেকের পর চীনের স্থানীয় ও রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিনহুয়া একটি সম্পাদকীয়তে ট্রাম্পের মেয়াদ শেষ হওয়াকে অভিবাদন জানিয়েছিল।