Home / অন্যান্য / অপরাধ / রিজার্ভের অর্থ চুরি নিয়ে নিরীক্ষা তদন্ত প্রয়োজন

রিজার্ভের অর্থ চুরি নিয়ে নিরীক্ষা তদন্ত প্রয়োজন

imageshhএলার্ট নিউজ প্রতিনিধি ঢাকা: বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের টাকা চুরি নিয়ে একটি নিরপেক্ষ নিরীক্ষা তদন্ত হওয়া দরকার। নিরীক্ষা না হলে আসলে কী ঘটেছে, সেটা যেমন জানা যাবে না, তেমনি ব্যাংকিং খাতের ব্যবস্থাপনার ঘাটতির বিষয়টি দূর করা যাবে না।
এমন মতামতই উঠে এসেছে আর্থিক খাতের সাইবার নিরাপত্তা নিয়ে আর্থিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ফিনএক্সেল ও বহুজাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রাইসওয়াটারহাউসকুপারসের (পিডব্লিউসি) যৌথ আলোচনা সভায়। ঢাকার বনানীতে গতকাল শনিবার এই আলোচনায় অংশ নেন বিভিন্ন ব্যাংকের আইটি-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ, পিডব্লিউসি প্রতিনিধিরা।
বক্তারা বলেন, সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিতে সফটওয়্যারসহ তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক (আইটি) যন্ত্রপাতি কেনায় দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো খরচ করতে কম আগ্রহী। একইভাবে ব্যাংকিং খাতের আইটি বিভাগের কর্মীদের যথাযথ প্রশিক্ষণেরও অভাব রয়েছে। সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিতে এসব দুর্বলতা দূর করে আইটি নিরীক্ষা চালুর বিকল্প নেই।
অনুষ্ঠানে সারা বিশ্বে পিডব্লিউসি প্রকাশিত ‘স্টেট অব ইনফরমেশন সিকিউরিটি ২০১৬’ শীর্ষক প্রতিবেদনের ফলাফল বাংলাদেশে প্রকাশ করা হয়। প্রতিবেদনটির বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন বাংলাদেশে পিডব্লিউসির ম্যানেজিং পার্টনার মামুন রশিদ। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন ফিনএক্সেলের চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু নাসের বখতিয়ার আহমেদ।
বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) আইটি পরিচালক ও সহকারী অধ্যাপক মাহবুবুল আলম বলেন, বিআইবিএমের গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো কেনাকাটা-সংক্রান্ত মোট ব্যয়ের ৬৪ শতাংশ খরচ করে হার্ডওয়্যার যন্ত্রপাতি কেনায়। আর আইটি প্রশিক্ষণে খরচ করে মাত্র দশমিক ৩ শতাংশ।
মাহবুবুল আলম আরও বলেন, ব্যাংকগুলোর আইটি বিভাগে উপযুক্ত লোকের অভাব প্রকট। এ কারণে আইটি ব্যবস্থাপনায় তৃতীয় পক্ষের ওপর ব্যাংকের নির্ভরশীলতা অনেক বেশি। আইটি নিরাপত্তা নিশ্চিতে বিভিন্ন ব্যাংকের এ-বিষয়ক নিরীক্ষা খুবই দুর্বল, এসব বিষয়ে নজর দিতে হবে।
মামুন রশিদ বলেন, প্রযুক্তি এখন যে গতিতে পরিবর্তিত হচ্ছে, এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারার সক্ষমতা তৈরিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক গুরুত্ব দেয়নি। এ জন্য উপযুক্ত ব্যক্তির নিয়োগ নিশ্চিতের পাশাপাশি উপযুক্ত প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।
রিজার্ভের টাকা চুরি হওয়ায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওপর সাধারণ মানুষের আস্থার জায়গাটা নষ্ট হয়েছে বলে মনে করেন মামুন রশিদ। তিনি বলেন, মানুষের বিশ্বাসকে মেরে ফেলা হয়েছে। এখন সেটি ফেরাতে যা যা করা দরকার, তাই করতে হবে। বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ব্যাংকিং খাতের সাপ্তাহিক ছুটির দিন রোববার করার বিষয়ে জোর দেন তিনি।
বেসরকারি এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক আর কিউ এম ফোরকান বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের টাকা চুরির বিষয়টি যেভাবেই ঘটে থাকুক, এর একটি নিরপেক্ষ নিরীক্ষা তদন্ত হওয়া দরকার।
ফিনএক্সেলের চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু নাসের বখতিয়ার আহমেদ বলেন, যেভাবে হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের টাকা চুরি হয়েছে, সেটি একটা অস্বাভাবিক কাণ্ড।
পিডব্লিউসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত এক বছরে ২৫টি দেশে হ্যাকাররা ১ বিলিয়ন বা ১০০ কোটি ডলার চুরি করেছে। এই সময়ে আর্থিক খাতে সাইবার হামল বেড়েছে ৩৮ শতাংশ। সাইবার হামলার মাধ্যমে আর্থিক দুর্নীতিতে প্রতিষ্ঠানের ভেতরে কর্মরতদের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি থাকে বলে গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে। ২০১৫ সালে এ ধরনের আর্থিক দুর্নীতির ৩৪ শতাংশ হয়েছে প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব কর্মীদের দ্বারা।
এই প্রতিবেদন তৈরিতে বিশ্বের ১২৭টি দেশের করপোরেট প্রতিষ্ঠানের ১০ হাজারের বেশি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা, আইটি প্রধানের মতো ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মতামত নেওয়া হয়েছে। গত বছরের মে থেকে জুনের মধ্যে অনলাইনে এসব মতামত সংগ্রহ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: