অপশক্তি যাতে মাথাচাড়া দিতে না পারে সজাগ থাকুন

37

আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে আবার ক্ষমতায় আসতে হবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করতে হবে। এই চট্টগ্রাম থেকেই আগামী নির্বাচনে বিজয়ের সূচনা করতে হবে। এই চট্টগ্রাম থেকেই আমরা বিজয় কেতন উড়াবো। গতকাল দুপুরে দক্ষিণ পতেঙ্গাস্থ বাটার ফ্লাই পার্কে ৪১ নম্বর দক্ষিণ পতেঙ্গা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

হানিফ বলেন, আওয়ামী লীগ ভোগ বিলাসের দল নয়। আওয়ামী লীগ এদেশের মানুষের গণতন্ত্র-উন্নয়ন ও ভাগ্য পরিবর্তনের দল। আওয়ামী লীগের নেতাদের ঘরে বসে থাকলে চলবে না। আমাদের নেতাকর্মীদের মাঠে নামতে হবে। দলকে শক্তিশালী করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশে যে অভাবনীয় উন্নয়ন, ব্যাপক সাফল্য তা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে হবে। সংগঠনকে শক্তিশালী করে জনগণের মন জয় করতে হবে।

তিনি বলেন, আজ পর্যন্ত বাংলাদেশের সকল মহৎ অর্জন ও সাফল্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাধ্যমেই অর্জিত হয়েছে। চট্টগ্রাম বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম সাংগঠনিক সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, একনাগাড়ে ১৪ বছর আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন থাকায় আত্মতুষ্টি ও অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসের অবকাশ নেই। কেননা আজ দেশ ও জাতির বিরুদ্ধে দেশ-বিদেশে নানামুখী চক্রান্তের জাল বোনা হচ্ছে। আমাদের অগোচরে যাতে কোনো অপশক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে না পারে সে ব্যাপারে তৃণমূলস্তরের নেতাকর্মীদের সর্বদা সজাগ থাকতে হবে। এই তৃণমূলস্তরটি হলো আওয়ামী লীগের মূল শক্তি। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ শক্তি ও সক্ষমতা বিচার-বিবেচনায় সব সময় সক্রিয় ও গতিশীল ছিল। দল ও জাতির কঠিন সময় ও দুর্দিনে কখনো লক্ষচ্যূত হয়নি এবং রাজপথেই সক্রিয় ছিল ও এখনো আছে। এ ধারাবাহিকতা অবশ্যই রক্ষা করতে হবে।

সম্মেলনের উদ্বোধক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাসনামলে এত অর্জন, সাফল্য ও উন্নয়ন আর কোনো আমলে হয়নি। অথচ ঈর্ষান্বিত একটি মহল যাদের জন্ম ক্যান্টমেন্টে এবং পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতা দখল করে অতীতে জনগণকে জিম্মি করে লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করেছে, তারা কিন্তু এসব কিছুই দেখেন না, তারা চোখ থাকিতে অন্ধ। এরা মিথ্যাচারে পটু।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ কেন্দ্রের নির্দেশনা ও পরামর্শ অনুযায়ী সংগঠনের স্তর ও কাঠামোকে বিনির্মাণ করে চলেছে। আমরা সাংগঠনিক সুদৃঢ় ঐক্য ও শৃঙ্খলাকে যথাযথ অনুসরণ করে চলেছি। এ ক্ষেত্রে কখনো ব্যত্যয় ঘটতে দেওয়া হয়নি। আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ চ্যালেঞ্জ হিসেবে গড়ে তুলে সংগঠনের তৃণমূলস্তরের কাঠামো ও নেতৃত্ব সৃষ্টিতে উদ্যোগী হয়েছে। আমরা চাই তৃণমূলস্তরের নেতৃত্বের ক্ষেত্রে প্রবীণ ও অভিজ্ঞদের সাথে নতুনের মেলবন্ধন ঘটাতে।

পতেঙ্গার বাটার ফ্লাই পার্কে পতেঙ্গা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ছালেহ আহমদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, কার্যনির্বাহী সদস্য কামরুল হাসান বুলু, পতেঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের আবদুল হালিম, এম.এম ইসলাম। সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এড. সুনীল কুমার সরকার, উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য শফর আলী, মোহাম্মদ হোসেন, আবু তাহের, দিদারুল আলম চৌধুরী, জাফর আলম চৌধুরী, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, মোহাম্মদ ইলিয়াছ, বেলাল আহমেদ, জয়নাল আবেদীন আজাদ প্রমুখ।

পতেঙ্গা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে কণ্ঠভোটে নতুন কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয় ছালেহ আহমদ চৌধুরীকে সভাপতি ও নুরুল আলমকে সাধারণ সম্পাদক করে।