Home / অন্যান্য / অপরাধ / সড়কে দোকান বসিয়ে চাঁদাবাজি টঙ্গীতে

সড়কে দোকান বসিয়ে চাঁদাবাজি টঙ্গীতে

সড়কের দুই পাশে প্রায় শতাধিক অস্থায়ী দোকান ও মাঝখানে ভ্যান বসিয়ে বিক্রি করা হয় নানা ধরনের পণ্য গাজীপুরের টঙ্গীর বিসিক পাগাড় এলাকায় । এসব দোকান থেকে দিনে ৫০ থেকে ১০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করছে একটি চক্র।

নতুন কোন দোকান বা ভ্যান বসানোর জন্য এ চক্রকে এককালীন দিতে হয় দুই থেকে তিন হাজার টাকা। এতে মাসে চাঁদা ওঠে প্রায় ৩ লক্ষাধিক টাকা।

এদিকে, অবৈধভাবে বসা এসব দোকানের কারণে এলাকার বাসিন্দারা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। দোকানগুলোর কারণে বিসিক এলাকার শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালামালের গাড়ি, ব্যক্তিগত গাড়ি, মুমূর্ষু রোগী বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স এমনকি রিকশা চলাচলেও মারাত্মক প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া, এ নিয়ে প্রায়ই গাড়িচালক ও পথচারীদের সঙ্গে দোকানদারদের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছে।

সরেজমিনে জানা গেছে, উত্তরখান এলাকায় বসবাসকারী কয়েক হাজার পোশাক শ্রমিক মাউছাইদ-গোদারাঘাট হয়ে টঙ্গীর বিসিকে প্রবেশ করে এই সড়ক দিয়ে। উত্তরখান ছাড়াও আশপাশের বিভিন্ন এলাকার কয়েক লাখ শ্রমিক যাতায়ত করে এই সড়ক দিয়ে। কিন্তু বেশ কিছুদিন যাবৎ গুরুত্বপূর্ণ সড়কটির দুইপাশ দখল করে অস্থায়ী বাজার গড়ে তুলেছে একটি অসাধু চক্র। পাগাড় ঝিনু মার্কেট থেকে জাবের অ্যান্ড জোবায়ের গার্মেন্টসের এক নম্বর গেইট পর্যন্ত সড়কের দুই পাশের অস্থায়ী দোকানগুলো থেকে চাঁদা তুলছে মিঠু খানের নেতৃত্বে একটি চক্র। এ কাজে লাইনম্যান হিসেবে কাজ করে মিঠু খানের শ্যালক রনি ও ফুটপাতের দোকানি সুজন। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্ধারিত সড়কের জায়গায় গড়ে ওঠা অবৈধ এ দোকানপাট থেকে যে চাঁদা উঠছে তার পুরোটাই যায় মিঠু খানের পকেটে।

চাঁদা উঠানোর দায়িত্বে থাকা ফুটপাতের দোকানি সুজন বলেন, ‘প্রতিটি দোকান থেকে দৈনিক ৫০/১০০ টাকা তোলা হয়। এই টাকা মিঠু খান ভাইকে দিতে হয়। কোন ঝামেলা হলে মিঠু ভাই সমাধান করে দেয়। নতুন দোকান বা ভ্যান বসাতে হলে জামানত বাবদ ২ থেকে ৩ হাজার টাকা দিতে হয়।’

এদিকে চাঁদা তোলার কথা স্বীকার করে মিঠু খান বলেন, ‘কিছুদিন আগে দোকানগুলো থেকে টাকা উঠানো হতো। বর্তমানে টাকা তোলা হয়না। এখন যেসব দোকানের সামনে দোকান/ভ্যান বসানো হয় তারা কিছু খরচ নেয়।’

এই চাঁদা কেন তোলা হয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এলাকার ভাই-ব্রাদাররা দুই-তিনশ টাকা যা উঠে তা দিয়ে চা নাস্তা করে।’

এ বিষয়ে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ৪৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আসাদুর রহমান কিরণ জানান, সিটি করপোরেশনের সড়ক দখল করে অবৈধভাবে দোকান যেন না বসে সেজন্য বেশ কয়েকবার মাইকিং করা হয়েছে। কয়েকবার তাদের উচ্ছেদও করা হয়েছে। তবুও মিঠু খানের নেতৃত্বে একটি চাঁদাবাজ চক্র সড়ক দখল করে দোকানপাট বসাচ্ছে। এ নিয়ে স্থানীয় পোশাক তৈরিকারক প্রতিষ্ঠানগুলোও অভিযোগ দিয়েছে। আমরা শিগ্রই সিটি করপোরেশন ও স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে আবার অবৈধ দোকান উচ্ছেদ অভিযান চালাব।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: