Home / স্বাস্থ্য / হলুদের ৬টি আশ্চর্যজনক প্রভাব শরীরে

হলুদের ৬টি আশ্চর্যজনক প্রভাব শরীরে

শরীর এবং মস্তিষ্কে আশ্চর্যজনক প্রভাব ফেলে হলুদ। সহজলভ্য হলুদই আমাদের সুস্বাস্থ্যের অন্যতম পরিপূরক হতে পারে। এই স্বাদের মশলাটি তরকারিকে সুন্দর রঙ দেয়। তবে তরকারির রঙয়ের চেয়েও অনেক বেশি উপকার করে আমাদের শরীরের।

মশলা হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে খাওয়ার কয়েক হাজার বছর আগে থেকে ভারতবর্ষে ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে হলুদ। এতে রয়েছে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি প্রভাব। শরীরে আশ্চর্যজনক প্রভাব ফেলে হলুদ। তার মধ্যে অন্যতম সাতটি প্রভাব হলো-

প্রাকৃতিক অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি প্রভাব

ইনফ্ল্যামেটরি বা প্রদাহ আমাদের শরীরের একটি প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। এটি শরীরকে প্রভাবিত অঞ্চলগুলি বিচ্ছিন্ন করতে এবং বাইরের আক্রমণকারীদের সঙ্গে লড়াই করতে সহায়তা করে। প্রদাহ ব্যতীত বিপজ্জনক রোগজীবাণুগুলির সম্পূর্ণরূপে আপনার শরীরের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার একটি পরিষ্কার পথ থাকবে। যাইহোক, প্রদাহ একটি কিছুটা ধোঁকাবাজি সরঞ্জাম এবং কখনও কখনও কোনও কারণ ছাড়াই দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। যখন এটি হয়, তখন আপনাকে ক্যান্সার, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ এবং এলার্জিসহ সকল ধরনের রোগের জন্য ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দেয়। তবে হলুদে এ জাতীয় শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা এই প্রদাহ উপশম করতে বিশেষভাবে কাজ করে বিপজ্জনক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়াই।

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ক্ষমতা বাড়ায়

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলি অক্সিডেটিভ ক্ষতি আটকাতে সক্ষম হয়, যা বার্ধক্য এবং রোগের পিছনে অন্যতম একটি প্রক্রিয়া। ফ্রি র‌্যাডিকালগুলি অপ্রয়োজনীয় ইলেক্ট্রনগুলির অত্যন্ত প্রতিক্রিয়াশীল অণু- এগুলো আপনার দেহের চারদিকে বাউন্স করতে পারে এবং ফ্যাটি অ্যাসিড, প্রোটিন বা ডিএনএ দ্বারা প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে। এই প্রক্রিয়াটির প্রভাবগুলিই অভ্যন্তরীণভাবে রোগ, বিশেষত ক্যান্সারের আকারে আপনার ত্বকে বাহ্যিকভাবে প্রদর্শিত হয়।

হলুদের মতো অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলি ফ্রি র‌্যাডিক্যালগুলির সঙ্গে যুক্ত হয় এবং ক্ষতি করার আগে এগুলোকে নিরপেক্ষ করে। তবে সরাসরি হলুদ এটি করতে পারে না। এটি আরও কঠোর পরিশ্রমের জন্য কোনো শরীরের নিজস্ব অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এনজাইমকে উদ্দীপিত করতে সহায়তা করে।

মস্তিষ্কের উন্নতি ঘটায়

আমাদের মস্তিষ্কের নিউরনগুলো শৈশবে সক্রিয় থাকে না। তার মানে এই নয় যে এটি সারাজীবন এমন থাকে। এই প্রক্রিয়াটি মস্তিস্ক থেকে প্রাপ্ত নিউরোট্রফিক ফ্যাক্টর বা বিডিএনএফ নামক একটি গ্রোথ হরমোন দ্বারা চালিত হয়। এই হরমোনের হ্রাস স্তরের হতাশা এবং এলার্জির মতো পরিস্থিতিতে রয়েছে বলে ধারণা করা হয়।

আপনি জানলে অবাক হবেন যে হলুদ মস্তিস্কে বিডিএনএফ এর মাত্রা বাড়ায়। এই ক্ষমতাটি খুব ভালভাবে টিকে থাকতে পারে এবং বয়স-সম্পর্কিত মস্তিষ্কের রোগ প্রতিরোধে কাজ করতে পারে। এটি আপনার স্মৃতিশক্তি উন্নত করতে পারে এবং এমনকি আপনাকে আরও স্মার্ট করে তুলতে পারে।

হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়

বিশ্বে যেকোনো রোগের চেয়ে সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হয় হৃদরোগে। এটি একটি জটিল রোগ। এই রোগের বিরুদ্ধে শক্তিশালী ভূমিকা পালন করে হলুদ। হলুদে থাকা অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দুটোই হৃদয়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়। হলুদে থাকা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট আর্টারিতে রক্ত জমাট বাঁধতে দেয় না। ফলে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক থাকে এবং হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটা কমে যায়।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

হলুদের একটি সক্রিয় উপাদান টিউমার সৃষ্টিকারী রেডিয়েশনের বিরুদ্ধে কাজ করে। এটি প্রোস্টেট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। হলুদে বিদ্যমান ‘কারকিউমিন’ প্রদাহজনিত সমস্যা বিরোধী এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মানব দেহের টিস্যুর মধ্যে প্রবেশ করে ভেতর থেকে দেহকে ক্যান্সার প্রতিরোধী করে তোলে। শরীরকে ক্যান্সার প্রতিরোধী করতে চাইলে কাঁচা হলুদ খেতে পারেন অথবা মাছ ও মাংসের তরকারিতে প্রয়োজন মতো ব্যাবহার করতে পারেন।

ব্যথা উপশম করে

অনেক দিন ধরেই প্রাকৃতিক ব্যথানাশক হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে হলুদ। এতে আছে কুরকুমিন নামের উপাদান। এতে যে প্রদাহবিরোধী উপাদান আছে, যা অ্যান্টিবায়োটিকের সঙ্গে পাল্লা দিতে পারে। অস্থিসন্ধির ব্যথা বা পেশির ব্যথা উপশম করতে পারে হলুদ। এটি মাথা ব্যথা, ফুলে যাওয়া ক্ষত ও ব্যথা উপশম করতে আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায়ও ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

দুধের সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে খেলে এর পুষ্টিগুণ অনেক বেড়ে যায়। উপকারও মেলে। সুপার ফুড হিসেবে হলুদ দুধকে আখ্যায়িত করা হয়ে থাকে। দুধের সাথে সামান্য হলুদ আর গোলমরিচ গুঁড়ো মিশিয়ে ফুটিয়ে নিলে তৈরি হয়ে যায় গোল্ডেন মিল্ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: