১২টি অভিজাত ক্লাবের সদস্য ছিলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

25

রাজধানীর গুলশান থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় রিমান্ডে যাওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীর ১২টি অভিজাত ক্লাবের সদস্য ছিলেন। এসব ক্লাবে নিয়মিত যাতায়াতও করতেন তিনি। গতকাল শুক্রবার বিকালে রাজধানীর কুর্মিটোলায় র‍্যাব সদরদপ্তরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

চিত্রনায়িকা পরীমনির ঘটনায় আলোচিত সাভারের বোট ক্লাবেরও সদস্য হেলেনা। বোটক্লাবে পরীমনির সঙ্গে সংঘটিত ঘটনা নিয়ে বোট ক্লাবে ঢুকে ফেসবুক লাইভে এসেছিলেন তিনি। তার ওই ফেসবুক লাইভে ব্যাপক নেতিবাচক মন্তব্য দেখা যায়। বোটক্লাবের ঘটনায় পরীমনিকে দোষারোপ ও নানা আপত্তিকর মন্তব্য করেছিলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর।

ব্লোটক্লাব ছাড়াও হেলেনা জাহাঙ্গীর গুলশান ক্লাব, গুলশান নর্থ ক্লাব, বারিধারা ক্লাব, কুমিল্লা ক্লাব, গলফ ক্লাব, গুলশান অল কমিউনিটি ক্লাব, বিজিএমইএ অ্যাপারেল ক্লাব, বোট ক্লাব, গুলশান লেডিস ক্লাব, উত্তরা লেডিস ক্লাব, গুলশান ক্যাপিটাল ক্লাব, গুলশান সোসাইটি, বনানী সোসাইটি, গুলশান জগার্স সোসাইটি ও গুলশান হেলথ ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত।

গত বৃহস্পতিবার হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটকের পর চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসতে থাকে। তাকে আটকের পর র‌্যাব জানায়, অস্ট্রিয়া প্রবাসী আলোচিত সেফুদার সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল। সেফুদার সঙ্গে আর্থিক লেনদেনও ছিল হেলেনা জাহাঙ্গীরের। এ ছাড়া হেলেনার জয়যাত্রা আইপি টিভি ও জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন ভবনে অভিযানের পর গতকাল শুক্রবার র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাদির শাহ বলেন, ‘জয়যাত্রা টিভির কোনো বৈধ কাগজপত্র ছিল না।’

গত কয়েক বছর ধরে আলোচিত-সমালোচিত রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী ও নারী উদ্যোক্তা হেলেনা জাহাঙ্গীর। সম্প্রতি ‘বাংলাদেশ আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ’ নামের একটি ‘ভূইফোঁড়’ সংগঠনে হেলেনা জাহাঙ্গীরের সভাপতি হওয়ার খবর ছড়ালে সম্প্রতি তাকে দুই কমিটি থেকেই বাদ দেয় আওয়ামী লীগ।

গত বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর গুলশানে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে র‌্যাব। পরে মিরপুরে হেলেনা জাহাঙ্গীরের মালিকানাধীন জয়যাত্রা আইপিটিভির কার্যালয় এবং জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন ভবনেও অভিযান চালানো হয়।

অভিযানের পর হেলেনাকে আটকের বিষয়ে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল কে এম আজাদ জানান, হেলেনার বাসায় ‘মদ, হরিণের চামড়া, ক্যাসিনো বোর্ড, ওয়াকিটকিসহ বেশ কিছু অবৈধ সরঞ্জাম পাওয়া গেছে। এ ছাড়া জয়যাত্রা আইপি টিভি ও জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন ভবনে অভিযানের পর র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাদির শাহ বলেন, ‘জয়যাত্রা টিভির কোনো বৈধ কাগজপত্র ছিল না।’

হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটকের পর রাজধানীর গুলশান থানায় হস্তান্তর করা হয়। এই থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় আদালতে আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে বিচারক তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।